মঙ্গলবার, আগস্ট 4, 2020
Home টাঙ্গাইল ধনবাড়ী ধনবাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধাদের কটুক্তি করায় জুতা পেটা!

ধনবাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধাদের কটুক্তি করায় জুতা পেটা!

ধনবাড়ী প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে মুক্তিযোদ্ধাদের কে নিয়ে কটুক্তি করার অপরাধে গ্রাম্য সালিশে ১০ টি জুতার বারি বিচারের রায় দিয়ে অপরাধের শাস্তি দিয়েছেন মাতাব্বরা।
যদুনাথপুর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন জানায়, ধনবাড়ী উপজেলার যদুনাথপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন কে কেন্দ্র করে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা হওয়ার পর বিজয়ী নব্য ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি আলমগীর হোসেন এর ভাতিজা পল্লী বিদুতের দালাল মাসলু আমার সামনে মুক্তিযোদ্ধাদের কে নিয়ে অকথ্য খারাপ ভাষায় গালিগালাজ করে। এঘটনায় আমি আমার ধনবাড়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন কালু তাকে বিষয়টি অবগত করি। করার পর মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে কুটক্তিকারী মাসলুর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করতে চাইলে স্থানীয় এলাকাবাসী বসে গত ২৫ তারিখে যদুনাথপুর ইউনিযনের বারইপাড়া সকাল বাজারে একটি সালিশ বৈঠকে বসে ১০ টি জুতোর বাড়ী বিচারের রায় দেন।
সালিশ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ধনবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আরেদ আলম, উক্ত সালিশ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ধনবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আ: হালিম, হাফিজুর রহমান তালুকদার শোভা, বীরমুক্তিযোদ্ধা সালাউদ্দিন টুক্কু, হায়দার আলী, ইউছুফ আলী, আব্দুল বাছেদ খান, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মামুন সহ স্থানীয় যদুনাথপুর ইউনিয়ন সহ ধনবাড়ী উপজেলার প্রায় ৫ শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
গত ২২ নভেম্বর ১৯ ইং শুক্রবার দিন ওয়ার্ড কমিটিতে যদুনাথপুর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন সভাপতি পদে চেয়ার প্রতীকে কুটক্তিকারী মাসলুর চাচা প্রতিদন্ধী আনারস প্রতীকের সভাপতি প্রার্থী আলমগীরের সাথে নির্বাচন করেন। চেয়ার প্রতীকের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন সভাপতি পদে হেরে যাওয়ায় তাকে উদ্দেশ্য করে বিজয়ী প্রার্থী আলমগীরের ভাতিজা কুটক্তিকারী মাসলু মুক্তিযোদ্ধাদের কে নিয়ে কুটক্তি করেন বলে বীরমুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন জানান।
ধনবাড়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ও বীরমুক্তিযোদ্ধা ইউছুফ আলী উক্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান এলাকার লোকজন ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদের কারনে এ ঘটনায় সালিশ বৈঠকে উপস্থিত নেতাকর্মীরা ও এলাকার মাতাব্বর গন বিচারের রায়ের ১০ টি জুতোর বাড়ী ও উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধাদের সকলের পায়ে ধরে মাফ চেয়ে বলে ভবিষৎতে কোন দিন সে মুক্তিযোদ্ধাদের কে নিয়ে কোন প্রকার খারাপ মন্তব্য বা কুটক্তি করবে না সকলের সামনে কথা দেওয়ায় ঘটনাটি মীমাংসা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ