টাঙ্গাইলে শিক্ষা কর্মকর্তার মেয়ের লিখিত পরীক্ষায় ৬৯ নম্বর পাওয়া সচিব পদ স্থগিত

846

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলে ইউনিয়ন পরিষদ সচিব পদে লিখিত পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করে উত্তীর্ন হওয়া আদ্রিতা রহমানের পদায়ন স্থগিত করেছে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন। মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে পরবর্তী কোন পদক্ষেপ না নেওয়া পর্যন্ত তার পদ স্থগিত থাকবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি।

আদ্রিতা রহমান টাঙ্গাইল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা খানমের মেয়ে। ইউনিয়ন পরিষদ সচিব ও হিসাব সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে গত (১৬ জুলাই) লিখিত এবং গত (১৭ জুলাই) ব্যবহারিক ও মৌখিক পরীক্ষার পর ফলাফল ঘোষিত হয়। সেখানে ১২ জন প্রার্থী চুড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ হন। সেই পরীক্ষায় টাঙ্গাইল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা খানমের মেয়ে আদ্রিতা রহমান সর্বোচ্চ ৬৯ নম্বর পেয়ে প্রথম হন। সে লিখিত পরীক্ষায় ৬০ ও ব্যবহারিকে শুন্য এবং মৌখিক পরীক্ষায় ৯ নম্বর পান। এ ঘটনায় টাঙ্গাইল বিবেকানন্দ স্কুল এন্ড কলেজের কেন্দ্র সচিব, সহকারি কেন্দ্র সচিব ও প্রার্থীর কক্ষের ইনভিজিলেটরের উপর প্রভাব বিস্তার করে শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা খানম তার মেয়েকে সর্বোচ্চ নম্বর পেতে সহায়তা করেন বলে অভিযোগ উঠে।

 

এ নিয়ে টাঙ্গাইল শহরে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠে। এ ঘটনায় টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মন্ত্রী পরিষদ সচিবের কাছে চিঠি দেন। এ বিষয় নিয়ে টাঙ্গাইলের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল টিনিউজবিডি ডটকমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সচিব পরীক্ষা কমিটির আহবায়ক আবু দাউদ টিনিউজকে বলেন, কে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন তা আমি জানি না। আমার জানান বিষয়ও না। পরীক্ষা কেন্দ্রে সার্বক্ষনিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাথে ছিলেন। সহায়তা করার প্রশ্নই উঠে না।

 

তবে যে কেন্দ্রে সচিব পদে পরীক্ষা হয়েছে সেই বিবেকানন্দ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আনন্দ মোহন দে সহায়তার বিষয়টি অস্বীকার করে টিনিউজকে বলেছেন, পরীক্ষার সময় টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রানুয়ারা খাতুন ও একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সার্বক্ষনিক কেন্দ্রে উপস্থিত ছিলেন। তাদের নির্দেশ মতো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে আমার সহায়তা করার সুয়োগ কোথায়?

এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি টিনিউজকে বলেন, আদ্রিতা রহমানের সর্বোচ্চ নম্বর নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠায় পুণরায় তার পরীক্ষা নেওয়া হয়। সেখানে সে কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম হননি। এতে তার সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্তীতে সন্দেহ হওয়ায় পরীক্ষা সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। তাই মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে পরবর্তী কোন পদক্ষেপ না নেওয়া পর্যন্ত তার সচিব পদ স্থগিত থাকবে।

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ