১৮ ইউপি নির্বাচনে আ.লীগ ১৩টিতে জয়ী ॥ ৫টিতে বিদ্রোহী প্রাথীর জয়

167

নোমান আব্দুল্লাহ ॥
টাঙ্গাইলের তিন উপজেলায় ১৮টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১৩টিতে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং ৫টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) রাতে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
সখীপুর উপজেলায়- এই ইউনিয়নে ৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে দুইটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও দুইটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। কাকড়াজান ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী দুলাল হোসেন ১৪ হাজার ৯৪৩ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তারিকুল ইসলাম বিদ্যুৎ পান ৬৮৭৫ ভোট। বহেড়াতৈল ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ওয়াদুদ হোসেন বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পান ৯ হাজার ৪২। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি হন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী গোলাম ফেরদৌস তিনি পান ৬ হাজার ১৪৭ ভোট। যাদবপুর ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী একেএম আতিকুর রহমান ১০ হাজার ২৯১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী খন্দকার বজলুর রহমান বাবুল পান ৬ হাজার ১৫৮। বহুরিয়া ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সরকার মোহাম্মদ নূরে আলম মুক্তা নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পান ৮ হাজার ৭০৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগের প্রাথী গোলাম কিবরিয়া সেলিম পান ৬ হাজার ২১৭ ভোট।
ধনবাড়ী উপজেলা- এ উপজেলায় ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে এবং ৩টিতে সাধারণ ও সংরক্ষিত পদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ৩টিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও ১টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে। অপরদিকে মুশুদ্দি, বীরতারা এবং বলিভদ্র ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়। ধোপাখালী ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আকবর হোসেন বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পান ৮ হাজার ৮৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী কামাল হোসেন তালুকদার পান ৪ হাজার ১৩৭ ভোট। যদুনাথপুর ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মীর ফিরোজ আহমেদ বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পান ১৬ হাজার ৩৩৪ জন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ পান ৭১৫ জন। বানিয়াজান ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রাথী রফিকুল ইসলাম তালুকদার ফটিক ৯ হাজার ৩৫০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী মাসুদ আলম পান ১ হাজার ১৯ ভোট। পাইস্কা ইউনিয়ন- এ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (ঘোড়া) জাহাঙ্গীর আলম ৭ হাজার ৩৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আরশেদ আলী পান ২ হাজার ৩৬৫ ভোট।
এছাড়া বিনা প্রতিদ্বন্দি¦তায় নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন- বলিভদ্র ইউনিয়নে রফিকুল ইসলাম, মুশুদ্দিতে আবু কাসাছার ও বীরতারাতে আমহেদ আল-ফরিদ। এরা সবাই আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী ছিলেন।
দেলদুয়ার উপজেলা- এ উপজেলায় ৭টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে নির্বাচনে ৫টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও দুইটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে।
ডুবাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইলিয়াস মিয়া, ফাজিলহাটী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শওকত আলী, দেলদুয়ার সদরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাসুদ উজ্জামান খান, পাথরাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রাম প্রসাদ ও দেউলী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী প্রার্থী দেওয়ান তাহমিনা হক বিজয়ী হয়েছে। এছাড়া লাউহাটী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহীন মোহাম্মদ খান ও এলাসিন ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মানিক রতন বিজয়ী হয়েছেন।
এর আগে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী, সখীপুরে এবং দেলদুয়ার উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নে বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে সকালে ধনবাড়ী উপজেলায় বানিয়াজান ইউনিয়নে বনিয়াজান কেন্দ্রে নৌকার প্রার্থী রফিকুল ইসলাম তালুকদার ফটিক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদ আলম তালুকদারের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে দুই গ্রুপের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। এছাড়া বিচ্ছিন্ন কিছু অভিযোগের মধ্যে দিয়ে ভোট গ্রহণ শেষ হয়।
নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৭৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এছাড়া সাধারণ সদস্য পদে ৬০৫ জন এবং সংরক্ষিত পদে ১৮৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাচনে ইতিমধ্যে ধনবাড়ী উপজেলার মুশুদ্দি, বীরতারা এবং বলিভদ্র ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে বিজিবিসহ পর্যান্ত সংখ্যাক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এএইচএম কামরুল হাসান টিনিউজকে বলেন, কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ