শীতকালীন শাকসবজিতে বাজারগুলোতে ভরপুর

147

1নোমান আব্দুল্লাহঃ
প্রকৃতিতে এখন ভিন্ন আমেজ। সকালে মিষ্টি রোদ আর রাতে হালকা ঠান্ডা। টিনের চালে কিংবা কলাপাতায় কুয়াশার সাথে শিশিরের টুপটাপ শব্দ নিয়ে যায় অন্য এক ভুবনে। শীত পুরোপুরি না পড়লেও এর মধ্যেই বাজারে আসতে শুরু করেছে শীতকালীন নানা শাক-সবজি। মুলা, শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পাতাকপিসহ শীতকালীন বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি। এসব শাক-সবজির দাম শুরুতে বেশি থাকলেও এখন কমতে শুরু করেছে। আর শীতকালীন শাকসবজির দাম কমতে থাকায় খুশি ক্রেতার।
কপি প্রতি কেজি ৪০-৫০ টাকা, শিম প্রতি কেজি ৭০-৮০ টাকা, লাউ প্রতিটি ৪০-৫০ টাকা, মুলা প্রতি আঁটি ১০-১৫ টাকা, ফুলকপি প্রতিটি ৪০ টাকা , পাতাকপি প্রতিটি ৩০-৩৫ টাকা, পালংশাক প্রতি আঁটি ৫০ টাকা, লাউশাক প্রতি আঁটি ১০ টাকা। শাকসবজির দাম কমতে শুরু করায় ক্রেতারা খুশি।
সরেজমিনে শহরের পার্কবাজার, বটতলা বাজার ঘুওে দেখা গেছে, বিক্রেতারা শীতকালীন শাকসবজি নিয়ে বসে আছেন, কিনছেন ক্রেতারা। এ বিষয়ে পার্ক বাজারের সবজি ব্যবসায়ী  হাসান বলেন, প্রায় ১৫ থেকে ২৫ দিন আগেই শীতকালীন শাকসবজি বাজারে উঠেছে। প্রথম দিকে দাম বেশি ছিল। এখন বাজারে শীতকালীন শাকসবজির সরবরাহ বাড়তে থাকায় এর দামও কমতে শুরু করেছে। সাধারণ মানুষ শীতকালীন শাকসবজি প্রচুর পরিমাণে কিনছে। আমি শীতকালীন শাকসবজি বিক্রি করে প্রতিদিন ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মত লাভ করি।
শীতকালীন শাকসবজি কিনতে আসা স্বপন কুমার দাস বলেন, আমি প্রতিনিয়তই শীতকালীন শাকসবজি কিনে থাকি। শীতকালীন শাকসবজির এখন দাম কিছুটা কম। দাম আর একটু কম হলে ভাল হতো।

ব্রেকিং নিউজঃ