যৌন হয়রানি, বাল্যবিবাহ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে মতবিনিময় সভা

108

10201স্টাফ রিপোর্টারঃ

ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি বিভাগের ‘মেয়েদের জন্য নিরাপদ নাগরিকত’¡ (মেজনিন) কর্মসূচির উদ্যোগে বৃহস্পতিবার সকালে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে যৌন হয়রানি, বাল্যবিবাহ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, সচেতনতার মাধ্যমে যৌন হয়রানি, বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ করা সম্ভব।
কর্মশালায় প্রধান অতিথি টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক মাহবুব হোসেন বলেন, বাল্যবিয়ে বা অপরিণত বয়সে বিয়ে অত্যন্ত ভয়াবহ একটি সমস্যা যা জেন্ডারসমতা ও নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্য অর্জনের ক্ষেত্রে একটি বড় বাধা। বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে সরকার কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। প্রশাসন জানামাত্রই কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। নোটারি পাবলিক এফিডেবিটের মাধ্যমে যেন বিয়ের বয়স সংশোধন করতে না পারেন সে লক্ষ্যে সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সহ¯্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার ৮টির মধ্যে ৬টি অর্জনের ক্ষেত্রেই বাল্যবিয়ে একটি অন্যতম বাধা। বাল্যবিয়ের কারণে ছেলে-মেয়ে উভয় শিশুরই মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয় এবং এর পরিণতিতে শুধু শিশু, অল্পবয়সী নারী নয় বরং ক্ষতিগ্রস্ত হয় পুরো পরিবার। বাল্যবিবাহের প্রথম শিকার হয় শিশু, দ্বিতীয় শিকার নারী এবং তৃতীয় শিকার সমাজ।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা করেন টাঙ্গাইল সদরের ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানায়ারুল হক, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট তাপ্তি চাকমা, জেলা সিনিয়র তথ্য অফিসার কাজী গোলাম আহাদ, মহিলা ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা নাসরীন সুলতানা, যৌন হয়রানি নিমূর্লকরণে নেটওয়ার্ক টাঙ্গাইলের সভাপতি খান মোহাম্মাদ খালেদ, ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি বিভাগের মেজনিন কর্মসূচির সিনিয়র সেক্টর স্পেশালিষ্ট কাজী শাহানা, ঝর্না দাস, জেলা ব্র্যাক প্রতিনিধি মুনীর হোসাইন খান, মেজনিন কর্মসূচির সিনিয়র সেক্টর স্পেশালিষ্ট মীর সামসুল আলম প্রমূখ।
কর্মশালায় সরকারী কর্মকর্তা, শিক্ষক, অভিভাবক, কমিউনিটি ওয়াচ গ্রুপ, স্টুডেন্ট ওয়াচ গ্রুপ, নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক, নারী আন্দোলনের নেতৃবৃন্দসহ প্রায় ৭০ জন উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য যৌন হয়রানি, বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে টাঙ্গাইল জেলার ২০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ২টি কওমি মাদ্রাসাসহ সারাদেশে ১৩টি জেলার ৪০৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি শিক্ষক, অভিভাবক, স্কুল ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য ও কমিউনিটির সদস্যদের ঐক্যবদ্ধ করে ব্র্যাকের উদ্যোগে মেয়েদের জন্য নিরাপদ নাগরিকত্ব (মেজনিন) কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে।

ব্রেকিং নিউজঃ