মির্জাপুর পৌরসভায় নারী ভোটারদের মন জয়ে প্রার্থীরা

205

1মির্জাপুর প্রতিনিধিঃ
মির্জাপুর পৌরসভায় এবার পুরুষের চেয়ে নারী ভোটারের সংখ্যা বেশি হওয়ায় তাদের ভোটেই নির্ভর করছে প্রার্থীদের ভাগ্য। নির্বাচনী প্রচারণার শেষ মুহূর্তে এসে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা এখন নেমেছেন নারী ভোটারদের মন জয়ের মিশনে।
তাই আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য মির্জাপুর পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের জয়-পরাজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছেন নারী ভোটাররা। এই অবস্থায় নারীরাও ভাবতে শুরু করেছেন কাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়নের পাশাপাশি বেশি উপকৃত হবেন তারা।
এলাকাবাসী জানিয়েছেন, পুরুষদের পাশাপাশি নারী ভোটারদের দিকেও সমান দৃষ্টি দিয়ে গণসংযোগের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন প্রার্থীরা। নারীদের সমর্থন ও সহানুভূতি আদায়ের লক্ষ্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্র্থনা করছেন তারা।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ হালনাগাদকৃত ভোটার তালিকায় মির্জাপুর পৌরসভায় পুরুষের চেয়ে নারী ভোটারের সংখ্যা বেশি। এ পৌরসভায় মোট ভোটার হচ্ছে ১৯ হাজার ২১৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ১৩৯ জন ও নারী ভোটার ১০ হাজার ৭৬ জন। এই পৌরসভায় পুরুষের চেয়ে নারী ভোটারের সংখ্যা ৯৩৭ জন বেশি।
এ অবস্থায় হিসেব-নিকেশ করে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে জয়-পরাজয় নির্ধারণ করবেন নারী ভোটাররা। বেশি ভাগ নারীর সমর্থন যে প্রার্থীর দিকে ঝুঁকে পড়বে তারই জয়লাভের সম্ভাবনা। এমন বাস্তবতায় পৌরসভায় প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা এখন বাড়তি দৃষ্টি দিয়েছেন নারী ভোটারদের দিকে। নারীদের সমর্থন আদায়ের লক্ষ্যে প্রার্থীরা বাড়িয়ে দিয়েছেন জনসংযোগ।
এদিকে নারী ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগে নারীদের অনেকেই স্বামী বা অভিভাবকদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিলেও এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। নারীদের মধ্যে সচেতনতা বাড়ায় এবার তারা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিতে চান কাকে ভোট দেবেন। এক্ষেত্রে প্রার্থীর যোগ্যতা বিচার করেই ভোট দেয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন তারা।
মির্জাপুর পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর এস এম রাশেদ বলেন, গত নির্বাচনে ওয়ার্ডবাসী তাকে ভোট দিয়ে বিপুল ভোটে জয়ী করেছেন। আগামী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে ওয়ার্ডবাসী তাকেই ভোট দিয়ে আবার জয়ী করবেন বলে তিনি আশা করেন।
মির্জাপুর পৌরসভার আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সাহাদৎ হোসেন সুমন বলেন, নারীরা এখন অনেক সচেতন। তাই তারা উন্নয়নের জন্য সরকার দলীয় প্রার্থীকেই ভোট দেবেন। গত কয়েকদিনের প্রচারণায় নারীদের ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন।
অন্যদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী পৌর বিএনপির সভাপতি হযরত আলী মিঞা জানান, এই কয়েক দিনে পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে প্রচারণায় গিয়ে ধানের শীষ প্রতীকের প্রতি নারীদের যে আগ্রহ দেখেছেন তাতে তিনি নিশ্চিত পৌরবাসী তাকেই বিপুল পরিমাণ ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন।

ব্রেকিং নিউজঃ