সোমবার, আগস্ট 10, 2020
Home দুর্নীতি মির্জাপুরে হারভাঙ্গা-বহনতলী সড়কের কার্পেটিং উঠে গেছে

মির্জাপুরে হারভাঙ্গা-বহনতলী সড়কের কার্পেটিং উঠে গেছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥
এলজিইডির অধিনে কোটি টাকার রাস্তার কাজে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিম্নমানের কাজ হওয়ায় তিন দিনের মধ্যেই রাস্তার উপর থেকে কার্পেটিং উঠে গেছে বলে এলাকাবাসি অভিযোগ করেছেন। এ নিয়ে এলাকায় অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার এক নম্বর মহেড়া ইউনিয়নের বহনতলী-হাড়ভাঙ্গা রাস্তার উন্নয়নের কাজে এ অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলা প্রকৌশল অফিস বলেছেন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা প্রকৌশল অফিস (এলজিইডি অফিস) সুত্র জানায়, মির্জাপুর উপজেলার মহেড়া ইউনিয়নের বহনতলী-হাড়ভাঙ্গা রোডের এক কি.মি. রাস্তা উন্নয়নের জন্য প্রায় ৯০ লাখ টাকার দরপত্র (টেন্ডার) আহবান করা হয়। কাজ পেয়েছেন সরকার কন্সট্রাকশন নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এলাকাবাসির মধ্যে আলমগীর হোসেন (৪৭) এবং আল মামুন (৩০) সহ একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করেন, বহনতলী-হাড়ভাঙ্গা রাস্তার কাজ শুরুর পর থেকেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রাস্তা উন্নয়নের নামে নানা অনিয়মসহ নিম্নমানের কাজ করে আসছেন। এক কি.মি. রাস্তার দুই পাশে গাইড ওয়াল নির্মান না করাসহ রয়েছে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশল অফিসে এলাকাবাসি অভিযোগ দেয়ার পরও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি বলে অভিযোগ তুলে ধরেন। সম্প্রতি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পচা ইট, কাঁদা মাটি ও খোয়ার উপর কার্পেটিং করেন। কার্পেটিং অতি নিম্নমানের হওয়ায় দুই তিন পরেই কার্পেটিং উঠে যায়। এ নিয়ে পুরো এলাকায় ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। বিপুল অংকের টাকা ব্যায়ে নির্মিত এই রাস্তায় সুষ্ঠু তদারকি না থাকায় রাস্তা উন্নয়নের নামে প্রায় কোটি টাকা হরিলুট হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী করেছেন এলাকাবাসি।
এ ব্যাপারে বহনতলী-হাড়ভাঙ্গা রাস্তার ঠিকাদারী সংস্থ্যা সরকার কন্সট্রাকশনের স্বত্তাধিকারী জয়ন্ত সরকার হাম্মির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিভিন্ন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, উপজেলা প্রকৌশল অফিসের নিয়ম অনুযায়ী এই রাস্তার কাজ করা হচ্ছে। এলাকার কিছু অসাধু চক্রের অন্যায় আবদার না রাখায় রাজনৈতিক ভাবে ফায়দা লুটার জন্য রাতের আধারে সাবল এবং লোহার রড় দিয়ে রাস্তার উপর থেকে কার্পেটিং (সলিং) উঠিয়ে ফেলেছেন। রাস্তার কাজে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি করা হয়নি বলে তিনি দাবী করেন।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর উপজেলা এলজিইডি অফিসের উপ সহকারী প্রকৌশলী (রাস্তা তদারকির কাজে নিয়োজিত) মহিউদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নিয়ম-কানুন মেনেই ঠিাকাদারী প্রতিষ্ঠান বহনতলী-হাড়ভাঙ্গা রাস্তার কাজ করে যাচ্ছেন। ওই এলাকার লোকজন অভিযোগ করেছেন রাস্তায় নিম্নমানের কাজ হচ্ছে। বিভিন্নভাবে তদন্ত চলছে। অনিয়মের অভিযোগ প্রমানিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ