মির্জাপুরে গৃহবধুকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগে সাবেক স্বামীসহ ২ জন আটক

111

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে তিন সন্তানের জননী সখিনা বেগম (৪২) নামের এক নারীকে রাতের আধারে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ ওই নারীর সাবেক স্বামীসহ দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের বাঁশতৈল পশ্চিম পাড়ার বসতঘর থেকে ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
আটককৃতরা হলো- সখিনার সাবেক স্বামী বাঁশতৈল গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে মফিজুর রহমান (৪৭) এবং একই গ্রামের বাহার উদ্দিনের ছেলে লেবু মিয়া (৫০)।

 

পুলিশ টিনিউজকে জানান, পাঁচ বছর আগে ওই নারী তালাকপ্রাপ্ত হয়ে দুই মেয়ে ও এক ছেলে নিয়ে নিজ বাড়িতে বসবাস করতেন। মেয়ে দু’জনের বিয়ে হওয়াতে প্রবাসী ছেলের বউকে নিয়ে ওই বড়িতে থাকতেন তিনি। ছেলের বউ বাড়িতে না থাকায় রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাতে সখিনা বেগমকে বাড়িতে একা ছিলেন। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) অনেক বেলা হলেও সখিনাকে না দেখে পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন খোঁজ করতে ওই বাড়িতে আসে। পরে ঘরের ভেতর তার মরদহে দেখতে পেয়ে বাঁশতৈল ফাঁড়ী পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠান। সখিনার গলায় রশির দাগ এবং গলার ডান পাশে কালো দাগ আছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 

সখিনার মা আকিরন বেগম অভিযোগ করে টিনিউজকে বলেন, আমার মেয়ে আত্মহত্যা করে নাই। ওরে মারা হইছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।
স্থানীরা টিনিউজকে জানায়, ছেলের বউ বাবার বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ায় রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাতে সখিনা বাড়িতে একা ছিলেন। এই সুযোগে হয়তো কেউ তাকে হত্যা করতে পারে।

বাঁশতৈল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক সাখাওয়াত হোসেন টিনিউজকে বলেন, নারীর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহতের গলায় রশির দাগ ও গলার ডান পাশে কালো দাগ রয়েছে। তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ