মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে ৩টি প্যানেলে প্রার্থী ৩২

123

বিশ্ববিদ্যালয সংবাদদাতাঃ
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন আগামী ২৫ জুলাই বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক লাউঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে। গত ১১ জুলাই বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়। এর পর থেকেই পুরো ক্যাম্পাসে নির্বাচনী আমেজ চলছে। ২০০৬ সালে মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির আহবায়ক কমিটি গঠন করা হলেও সমিতির নামে তেমন কোন কার্যক্রম চোখে পড়েনি। প্রায় ১ যুগ পর মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির প্রথম নির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচনে ভোটার রয়েছেন ১শত ৮৪ জন।
জানা যায়, নির্বাচনে ১৫টি পদের বিপরীতে ৩টি প্যানেলের মাধ্যমে মোট ৩২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করবে। ৩টি প্যানেলের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা চেতনা বিশ^াসী প্যানেল থেকে সভাপতি পদে অধ্যাপক ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক পদে ড. মোঃ ইকবাল মাহমুদসহ মোট ১৪ জন, শাহীন-লিটন পরিষদ নামে প্যানেল থেকে সভাপতি পদে ড. মুহাম্মদ শাহীন উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক পদে মুহাম্মদ আবুল কাশেম লিটনসহ মোট ১৫ জন এবং স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী মূল্যবোধে বিশ^াসী শিক্ষক প্যানেল থেকে সভাপতি অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. মহিউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ড. মোহাম্মদ মাতিউর রহমান এবং কোষাধ্যক্ষ পদে ড. মোঃ ইমাম হোসেন প্রতিদ্বন্দিতা করবেন। ইতোমধ্যে, ৩টি প্যানেলের পক্ষ থেকে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করা হয়েছে। প্রত্যেক প্যানেলের প্রার্থীরা স্ব-স্ব ইশতেহার নিয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।
এ ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের সভাপতি ও মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা চেতনা বিশ^াসী প্যানেল থেকে সভাপতি প্রার্থী প্রফেসর ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি সব সময় শিক্ষকদের সাথে ছিলাম। সকল সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে কাধেঁ কাধ মিলিয়ে কাজ করেছি এবং ভবিষ্যতেও করবো। আশা করি, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকমন্ডলী বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী এ প্যালেনকে জয়যুক্ত করবে। নির্বাচিত হলে পূর্বেও ন্যায় শিক্ষকদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে অবদান রাখবো।
এ ব্যাপারে মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী মূল্যবোধে বিশ^াসী শিক্ষক প্যানেল থেকে সভাপতি প্রার্থী অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. মহিউদ্দিন বলেন, আমরা কথায় নয় কাজে বিশ্বাসী। আমরা শিক্ষকদের কল্যানে কাজ করি, তা ইতোমধ্যে প্রমাণিত। নির্বাচিত হলে, শিক্ষকদের গবেষণা ও প্রযুক্তিতে উৎকর্ষতার জন্য কাজ করবো। তিনি আরো বলেন, এখনো অনেক নীতিমালা হয়নি। সে সব নীতিমালাসহ শিক্ষকদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে কাজ করবো। সর্বোপরি, এ বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি আধুনিক ও আদর্শ বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে সক্রিয় ভাবে কাজ করবো।
এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন ও মাভাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে শাহীন-লিটন পরিষদ থেকে সভাপতি প্রার্থী ড. মুহাম্মদ শাহীন উদ্দিন বলেন, প্রতিদ্বন্ধীতাকারী প্যানেলগুলোর মধ্যে আমরাই সবগুলো পদে প্রার্থী দিতে পেরেছি। আশা করি আমরা সকলের সমর্থন পাবো। জয়ী হলে সকলকে সাথে নিয়ে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে কাজ করবো। শিক্ষকদের গবেষণা ও একাডেমিক বিষয়ে গুরুত্বারোপসহ শিক্ষার ভাল পরিবেশ তৈরি করতে চাই। তিনি আরো বলেন, যখন যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনে থাকেন তারাই বিভিন্ন পদ-পদবী ধরে রাখেন। এর পরিবর্তন দরকার।
উল্লেখ্য, ২৫ জুলাই মঙ্গলবার শিক্ষক লাউঞ্চে সকাল ১০.০০ থেকে দুপুর ২.০০টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে নির্বাচনের ফলাফল বিজ্ঞপ্তি আকারে প্রকাশ করা হবে ও ১ আগস্ট মঙ্গলবার একই স্থানে বিকাল ৪টায় নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ