মধুপুর বনে ধর্ষণের সময় ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ও যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

145

স্টাফ রিপোর্টার :

টাঙ্গাইলের মধুপুর বনে এক মেয়েকে ধর্ষণ করার সময় সোমবার দুপুরে হাতেনাতে মধুপুর উপজেলার অরণখোলা ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা আমিনুল ইসলাম ও ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম আরিফকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ে নিজে বাদি হয়ে মধুপুর থানায় বিকেলে ধর্ষন মামলা দায়ের করেছেন।
মধুপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান, মেয়েটি তার চাচাতো ভাইয়ের সাথে মধুপুর গড় এলাকার ঘুঘুর বাজার এলাকায় আত্মীয়বাড়ী যাচ্ছিল। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তারা বনের ভেতরে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের বড়বাইদ নামকস্থানে পৌঁছলে জলছত্র এলাকার ইব্রাহীম মিঞার ছেলে আরিফ হোসেন (২৪) এবং আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে আমিনুল ইসলাম (২৩) তাদের পথরোধ করে। তারা মেয়েটির চাচাতো ভাইকে হুমকি দিয়ে মেয়েটিকে বনের ভেতরে নিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর মধুপুর থানা পুলিশের একটি টহল ভ্যান ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় মেয়েটির চাচাতো ভাই পুলিশ ভ্যান থামায় এবং তাদের অপহরণের বিষয়টি জানান। পরে পুলিশ বনের ভেতর ঢুকে বিবস্ত্র মেয়েটিকে আমিনুলের সাথে ধস্তাধস্তি ও ধর্ষণ চেষ্টা অবস্থায় আটক করে। এ সময় মেয়েটি পুলিশকে জানান, তাকে প্রথমে আরিফ ধর্ষণ করেছে। পরে আমিনুল ধর্ষণের জন্য ধস্তাধস্তি করছিলো। পুলিশ তাদের আটক করে মধুপুর থানায় নিয়ে আসে। পওে মেয়েটি নিজে বাদি হয়ে আরিফ ও আমিনুলকে আসামী করে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।
এ বিষয়ে মধুপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বাবলু জানান, আরিফ ও আমিনুল আগে ছাত্রলীগের সাথে জড়িত ছিল। বর্তমানে তারা ছাত্রলীগের সাথে জড়িত নেই। তবে অরনখোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান ইমাম মিন্টু জানান, আরিফ অরনখোলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আর আমিনুল এক সময় অরনখোলা ইউনিয়ন যুবলীগের সাথে জড়িত ছিল।
সোমবার বিকেলে মেয়েটিকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ