মধুপুর গড়ে নিজস্ব ভাষার বই পেল ক্ষুদে গারো শিক্ষার্থীরা

78

হাবিবুর রহমান, মধুপুর ॥
দেশের বৃহত্তর ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইলের মধুপুর গড়ে গারো সম্প্রদায়ের বসবাস। লাল মাটির মধুপুর গড়ের গারো সম্প্রদায়ের তাদের আচিক ভাষা (গারো ভাষা) হারিয়ে যাচ্ছিল। সেই সময়ে সরকার ক্ষুদে গারো সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য তাদের নিজস্ব ভাষা বই দিয়েছে। সারা দেশের ন্যায় বই উৎসবে মধুপুরে অন্যান্য বই বিতরণের পাশাপাশি প্রাক-প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত ১৭’শ বই বিতরণ করা হয়েছে। নিজস্ব ভাষার বই পেয়ে ছাত্র শিক্ষক ও গারো সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তবে তাদের দাবি গারো শিক্ষক নিয়োগ ও তাদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিশুদের মাঝে গারো ভাষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার।




মধুপুরের অরণখোলা, বেরিবাইদ, কুড়াগাছা, শোলাকুড়ি, ফুলবাগচালা ও আউশনারা ইউনিয়নে গারো সম্প্রদায়ের বসবাস। গড় এলাকার বিভিন্ন গ্রামে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশাপাশি রয়েছে মিশনারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। সরকার নৃতাত্ত্বিক জন গোষ্ঠির শিশুদের জন্য অন্যান্য পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি তাদের নিজস্ব ভাষার বই দিয়ে ভাষা চর্চা ও ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের জন্য বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত বিতরণ করেছে। বাংলা, গণিত ও ইংরেজী তিনটি বই বিতরণ করেছে বলে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে। গারো সম্প্রদায়ের লোকেরা তাদের নিজস্ব ভাষার বই পড়ানোর জন্য শিক্ষক নিয়োগ, প্রশিক্ষণ ও সরকারী মনিটরিং এবং ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করনের দাবি স্থানীয় গারো সম্প্রদায়ের।




গায়রা গ্রামের অভিভাবক সুস্ময় নকরেক জানান, তার মেয়ে নাম্বিয়া দালবত একটি কিন্ডার গার্টেনে পড়ে। ওই স্কুলে গারো ভাষার বই পড়ানোর মতো কোন শিক্ষক নেই। ফলে তাদের ভাষার বই পড়ানো হয় না বলে তিনি জানান। শিশুরা এ ভাষায় বই পড়তে পারলে তাদের ভাষা সংরক্ষণের পাশাপাশি চর্চার সুযোগ সৃষ্টি হবে। এ জন্য তিনি স্কুলগুলোতে গারো সম্প্রদায়ের শিক্ষক নিয়োগের পাশাপাশি অভিভাবকদের যতœশীল হওয়ার কথা বলেন।




ভুটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মার্জিনা চিসিম জানান, গারো সম্প্রদায়ের শিশুদের জন্য তাদের ভাষায় পাঠ্যপুস্তক দেয়ায় তিনি ও তার সম্প্রদায় খুশি। সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে এই শিক্ষিকা বলেন, সব স্কুলেই গারো সম্প্রদায়ের শিক্ষিক নেই। অনেক স্কুলেই গারো শিক্ষার্থী রয়েছে কিন্তু অনেক স্কুলেই গারো ভাষার বই পড়ানোর মত শিক্ষক নেই। এ জন্য তিনি যে সব স্কুলে গারো শিক্ষার্থী রয়েছে ওই সব স্কুলে গারো সম্প্রদায়ের শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে প্রশিক্ষণের দাবি জানন। তাদের ভাষায় বই পাওয়ার ফলে গারো শিশুরা তাদের নিজস্ব ভাষার পাশা পাশি অন্যান্য ভাষায়ও পড়াশুনার সুযোগ পাবে।




আচিক মিচিক সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক সুলেখা ¤্রং নিজস্ব ভাষার বই পেয়ে খুশি। এর ফলে গারো সম্প্রদায়ের শিশুরা যে সময়ে তাদের ভাষা হারিয়ে যাচ্ছিল ঠিক সেই সময়ে এই বই পেয়ে শিশুরা নিজস্ব ভাষায় পড়তে পারবে। এ চর্চার মধ্য দিয়ে শিশুরা তাদের ভাষা ধরে রাখতে পারবে। ফলে আচিক ভাষা বা গারো ভাষা সংরক্ষণ হবে বলে তিনি মনে করেন। গারো ভাষার বই পড়ানোর জন্য তিনি গারো শিক্ষক দরকার উল্লেখ করে বলেন, এতে সহজে পড়াতে ও বুঝাতে পারবেন।




জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক জানান, গারো ভাষার বই পাওয়ার ফলে শিশুরা তাদের ভাষা চর্চা ও শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি হবে। এ জন্য কর্তৃপক্ষের মনিটরিং ও ক্লাসের এই বই পড়ানো প্রতি জোড় দিতে হবে। তিনি বলেন রোমান হরফে লেখা বই উচ্চারণ অনেকটা কঠিন। এ জন্য শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ সেমিনার ও কর্মশালার ব্যবস্থা হলে ভাল হবে।




মধুপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম জানান, বই উৎসবে অন্যান্য বইয়ের পাশা পাশি মধুপুরের নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠির গারো সম্প্রদায়ের শিশুদের জন্য প্রাক-প্রাথমিকের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের জন্য ৫’শ ও প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত প্রতি ক্লাসে ৪’শ করে বই বরাদ্ধ পেয়ে বিতরণ করা হয়েছে।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ