মধুপুরে ৪ হত্যার প্রধান আসামী সাগরের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি

192

আদালত সংবাদদাতা ॥
টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর স্বামী-স্ত্রীসহ একই পরিবারের চারজনকে গলাকেটে ও কুপিয়ে হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত প্রধান আসামী সাগর আলী (২৬) আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।
মঙ্গলবার (২১ জুলাই) দুপুরে টাঙ্গাইল সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সামছুল আলমের আদালতে তার জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে গ্রেফতারকৃত জোয়াদ আলী নামে অপর আসামীকে সোমবার (২০ জুলাই) তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। টাঙ্গাইল আদালতের পরিদর্শক তানভীর আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
গত (১৭ জুলাই) মধুপুর উপজেলার পৌর এলাকা মাস্টারপাড়ার নিজ বাড়ির তিনটি ঘর থেকে ব্যবসায়ী আব্দুল গণি (৫২), তার স্ত্রী তাজিরন বেগম (৪২), ছেলে তাজেল (১৮) ও মেয়ে সাদিয়ার (৮) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি রক্তাক্ত কুড়ালসহ (কুঠার) বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করা হয়।
প্রধান আসামী সাগর আলী হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতকে জানিয়েছে, নিহত আব্দুল গণি মিয়া ও তার পরিবারের সদস্যদের সাথে তার দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক ছিল। আসামী সাগর নিহত আব্দুল গণির বাসার পাশেই বাসা ভাড়া করে থাকতো এবং মধুপুরে রিক্সা চালতো। বিভিন্ন সময় গণির কাছ থেকে সাগর দাদনে টাকা নিতো। এ টাকা পরিশোধে মাঝে মধ্যে ব্যর্থ হতো। এ অবস্থায় গত বুধবার (১৫ জুলাই) সকালে আব্দুল গণির বাসায় গিয়ে সে আবারও ২‘শত টাকা চেয়ে ব্যর্থ হয়। এতে সাগর অপমানিতবোধ করে এবং গণিকে হত্যার পরিকল্পনা নেয়। পরিকল্পনা মতো বুধবার (১৫ জুলাই) রাত ১০টার দিকে সাগর একাধিক বন্ধুকে সাথে নিয়ে গণির বাসায় গিয়ে চেনতানাশক দিয়ে অজ্ঞান করে আব্দুল গণি মিয়া ও তার স্ত্রী-সন্তানসহ ৪ জনকে পর্যায়ক্রমে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে। এ সময় তারা বাসার মালামাল লুট করে করে নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় নিহত আব্দুল গণির বড় মেয়ে সোনিয়া বেগম বাদী হয়ে গত শুক্রবার (১৭ জুলাই) অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে মধুপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (১৭ জুলাই) টাঙ্গাইলের মধুপুর পৌর শহরের মাষ্টার পাড়ার আব্দুল গণির তালাবদ্ধ বাসা থেকে ৪ জনের লাশ উদ্ধার করে মধুপুর থানা পুলিশ।

ব্রেকিং নিউজঃ