মধুপুরে সুজন হত্যা মামলার পুনঃতদন্ত ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

187

মধুপুর সংবাদদাতা ॥
টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলায় সুজন হত্যা মামলার নিরপেক্ষ পুনঃতদন্ত ও আসামী পক্ষের মিথ্যা মামলা ও হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে নিহত সুজনের পরিবার। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) সকালে মধুপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। নিহতের পরিবারের পক্ষে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন মামলার বাদী ধলপুর গ্রামের নিহত সুজনের ভাই জয়নাল আবেদীন।
লিখিত বক্তব্যে জয়নাল আবেদীন বলেন, তার ভাই সুজন মিয়া একজন ইলেকট্রিক মিস্ত্রি ছিল। একই গ্রামের কাজিম উদ্দিনের ছেলে মহির উদ্দিনের সাথে বিদুৎতের মিটার সংযোগ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। বৈদ্যুতিক মিটার সংযোগ নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে গত (৩ জানুয়ারী) একই গ্রামের রেজাউল করিম (৩৫), উজ্জল মিয়া (৩২), শামীম (৩০), ইউসুব আলী (৫০), ইয়ামিন (২৮), মহির উদ্দিন (৫০), বাদশা মিয়া (৫৫), রাসেল (২২), সেলিম মিয়া (৩০), রুহুল আমিন (২৬), জয়নাল আবেদীন (৪৬), রেজিয়া বেগম (৪৫) ও বোয়ালী গ্রামের আব্দুল জলিলসহ অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা দিনে দুপুরে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ এনে মধুপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় প্রাথমিকভাবে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা রুজু হয়।
এ মামলায় বর্তমানে ৫ জন জেলহাজতে রয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মধুপুর থানার এসআই আল আমিন (বর্তমানে কালিহাতী থানায়) কর্মরত তদন্ত কর্মকর্তা তদন্ত শেষে ৭ জনকে বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশীট দাখিল করে। চার্জশীট বাদীর মনমত না হওয়ায় আদালতে মামলাটি নারাজী দাখিল করে। আদালত নারাজী গ্রহণ করে ডিবিকে মামলাটি পুনঃতদন্তের নির্দেশ দেয়। বাদী তার বক্তব্যে আরো বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা বিবাদীদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সঠিকভাবে তদন্ত না করে এজাহারভুক্ত আসামীদের বাদ দিয়ে চার্জসীট দাখিল করেছেন। বর্তমানে বাদ পড়া আসামীদের ভয়ে বাড়ীঘরে থাকতে পারছিনা। বিবাদীরা আমাদের নামে ৪টি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে।
সংবাদ সম্মেলনে নিহত সুজনের বাবা নজর আলী, মাতা ফাতেমা, বোন চায়না বেগম, ভাই দুলাল, আয়নাল হকসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ