মঙ্গলবার, আগস্ট 4, 2020
Home দুর্নীতি মধুপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার অর্থে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

মধুপুরে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার অর্থে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার ১১নং শোলাকুড়ী ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার নগদ অর্থ সহায়তার তালিকায় ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তালিকায় ইউপি চেয়ারম্যান আক্তার হোসেনের শ্বশুড়, ভায়রা, সহোদর তিন ভাই, তিন শ্যালক, শ্যালকের তিন ছেলেসহ ৫১ জন নিকট আত্মীয়ের নাম দিয়ে ২৫‘শত টাকা করে উত্তোলন করা হয়েছে। এছাড়া তালিকায় প্রবাসী, প্রভাবশালী ব্যবসায়ী, স্বচ্ছল ও সম্পদশালীদের নাম নিয়ে এলাকাতে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে ওই ইউপি চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন ও ইউপি সদস্য ফরহাদ আলীর বিরুদ্ধে এলাকাবাসী প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
এছাড়া সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, উপপরিচালক দুর্নীতি দমন কমিশন টাঙ্গাইল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মধুপুর ও উপজেলা চেয়ারম্যান মধুপুর, টাঙ্গাইল বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এলাকাবাসী।
এলাকাবাসী ও অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, শোলাকুড়ী ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার আড়াই হাজার টাকার সুবিধাভোগীর তালিকায় চেয়ারম্যানের ভাই, ভাতিজা, ভায়রা, শ্বশুড়, শ্যালক, শ্যালকের ছেলেসহ ৫১ নিকট আত্মীয় এবং পাকা বাড়ী ২০/২৫ বিঘা কৃষি জমির মালিক, ওমান প্রবাসী, স্বচ্ছল ব্যবসায়ীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া চেয়ারম্যানের আত্মীয়তার সুবাদে প্রভাবশালী, ধনাঢ্য বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের নামও রয়েছে তালিকায়। যা ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির সামিল। অভিযোগ থেকে আরও জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার অর্থ সহায়তার আওতায় ১১নং শোলাকুড়ি ইউনিয়নে ৩৬০ জন সুবিধাভোগীর নাম চূড়ান্ত করে তালিকা প্রনয়ন করা হয়। এ তালিকায় ৯টি ওয়ার্ডে সমহারে বন্টন না করে চেয়ারম্যান তার ৫১ নিকট আত্মীয়সহ নিজ ওয়ার্ডেই বরাদ্দ দিয়েছেন ৮৬ জনের। আবার উপকারভোগীর নাম ঠিকানা থাকলেও মোবাইল নম্বর দেয়া হয়েছে অন্য জনের। এছাড়া তালিকায় অন্যান্য সরকারী একাধিক সুবিধাভোগী ব্যক্তির নামও রয়েছে।
এ ব্যাপারে শোলাকুড়ী ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক ও শোলাকুড়ী বাজার বণিক সমিতির সভাপতি এসএম খাইরুল বাশার সোহেল টিনিউজকে জানান, ইউপি চেয়ারম্যানের স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির কারণে সুবিধা বঞ্চিত হয়েছে করোনায় কর্মহীন এলাকার অহসায় গরীব মানুষ। আর টাকার লোভে ধণীদের সাঁজানো হয়েছে গরীব। ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি-জামায়াতের লোকদের প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের অর্থ দিয়েছেন। শোলাকুড়ী বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরিদ হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা মুরাদ হোসেন, কৃষক আব্দুল আজিজসহ এলাকার অনেকেই টিনিউজকে জানান, তালিকায় চেয়ারম্যান ব্যাপক দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে নিজের ভাই-ভাতিজা, শ্যালক, আত্মীয়-স্বজনদের নাম এবং বিত্তশালীদের নাম দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নগদ সহায়তার টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন। আমরা এর সুবিচার চাই।
এ ব্যাপারে শোলাকুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন টিনিউজকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। নিয়ম মেনেই তালিকা প্রনয়ন করা হয়েছে। আমার আত্মীয়-স্বজনরা তো ইউনিয়নের বাইরের না। তারা যদি গরীব হয় তাহলে তাদের নাম দেয়া কি অন্যায়।
এ বিষয়ে মধুপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরিফা জহুরা লিখিত অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে টিনিউজকে বলেন, তদন্ত স্বাপেক্ষে দোষীসাব্যস্ত হলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম টিনিউজকে বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য মধুপুরের ইউএনওকে বলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ