মধুপুরে কৃষি জমি নষ্ট করে মাটি লুটের রাজত্ব চলছে

57

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের মধুপুরে মাটি খেকোরা বেপোরোয়া হয়ে উঠেছে। অপ্রতিরুদ্ধ মাটি লুটে নেমেছে এক বিশাল সিন্ডিকেট। মধুপুর এলাকার কুড়াগাছা ইউনিয়ের পিরোজপুর গ্রামের বালাইদ বাইদের কৃষি জমির মাটি টাইলস কোম্পানিতে বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। মাটি খেকোদের থাবায় নিশ্চিহ্ন হচ্ছে ধানের জমি। নিঃশ্ব হচ্ছে এলাকার কৃষক। কৃষকদের ফাঁদের ফেলে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে কেড়ে নিচ্ছে বিঘায় বিঘায় বাইদ নিচু এলাকার জমি। অনেককে আবার বিপদে ফেলেও কেড়ে নিচ্ছে জমির মাটি। অতিরিক্ত মাটি লোডের কারণে এলাকার রাস্তা ঘাট ক্ষতবিক্ষত হচ্ছে। রাস্তা ঘাটে চলাচল করা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে স্থানীয়দের। সাধারণ মানুষ এই মাটি লুটের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না। তাদেরকে নানা ভাবে হয়রানির হুমকি দেওয়া হয়ে থাকে। ফলে হাঁপিয়ে উঠেছে মধুপুরের কুড়াগাছা ইউনিয়নের পিরোজপুর, অরোণখোলা ইউনিয়নের অরোণখোলার কালার বাজার ও মির্জাবাড়ী ইউনিয়নের ভবানীটেকি ফইলাকুড়ি গ্রামের নিরহ সাধারণ জনগণ।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

ফসলি জমির মাটি হারিয়ে বুক চাপড়াচ্ছে এই কয়েক গ্রামের জমি হারানো নিঃশ্ব কৃষককেরা আর মাটি লুটেরা সিন্ডিকেটের সদস্যরা রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাচ্ছে। এক সময়ের দিনমুজুর, কাঠচোর, নার্সারি ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে স্থানীয় টাউট বাটপাররা মিলে মাটি লুটের মহা সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। এ মাটি লুটেরাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে প্রশাসন দফায় দফায় মাটি ভর্তি ট্রাক, মাটি কাটার ভেকু, ভেকুর ব্যাটারী জদ্ধ করে। ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কয়েক দফায় জরিমানা আদায় করা হয়। আর মাটি লুট করবে না মর্মে মুচলেকাও নেওয়া হয়। তারপরেও থেমে নেই তাদের মাটি লুটের রাম রাজত্ব।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

শুক্রবার (২০ অক্টোবর) রাতে মধুপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীমা ইয়াসমীন ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) জাকির হোসেনের নেতৃত্বে কুড়াগাছার ইউনিয়নের পিরোজপুরের বলাইদ বাইদে গিয়ে মাটি লুট অবস্থায় মাটি ভর্তি দু’টি ট্রাক, মাটি কাটার ভেকুর ব্যাটারী জদ্ধ করে উপজেলায় নিয়ে আসে। ভেকুটি স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় রাখা হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসীর মাটি লুটের রাম রাজত্ব বন্ধ করে কৃষি জমির রক্ষার মাধ্যমে বিল এলাকার জীব বৈচিত্র ও পরিবেশ রক্ষার দাবী জানিয়েছে।

সরজমিনে মধুপুর শহর থেকে ৭ কি.মি উত্তরে কুড়াগাছার ইউনিয়নের পিরোজপুর ও অরণখোলা গ্রামে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, হাওদা বিলের শাখা বলাই বাইদ। এই বাইদে প্রচুর পরিমাণে বোরো ও আমন ধান চাষ হয়। এই বাইদের মাছের সুনাম রয়েছে উপজেলা জুড়ে। স্থানীয় বাইদবাসীর একমাত্র ধানের জমি এই বাইদ। কৃষকদের ধান চাষে এই বাইদের জমিতে সেচ দিতে হয় না। এই বাইদের জমি উর্বর থাকায় প্রচুর পরিমাণে ধান হয়। এই বাইদের মাটির গুণগত মান ভালো থাকায় টাইলস কোম্পানিতে রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। এ মাটি দিয়ে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন সিরামিস কোম্পানিতে উন্নতমানের টাইলস। এক ট্রাক মাটি ৪০ থেকে ৭০ হাজার টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

স্থানীয়রা জানান, পিরোজপুর গ্রামের আবু হানিফের ছেলে আলকাশ উদ্দিন, কলিমউদ্দিনের ছেলে বাচ্চু মিয়া, জোয়াদ আলী ছেলে আব্দুল কুদ্দুস, পাইনা সামাদের ছেলে সিদ্দিক, কাশেম আলী ছেলে নজরুল, মমিনের ছেলে চাঁন মিয়া, আমজাদ আলীর ছেলে আনছের আলী, শামছুল হকের ছেলে বাবুল মিয়া গংরা মিলে এ মাটি লুটের সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। তারা আশি^ন মাস থেকে বৈশাখ জ্যেষ্ঠ এই কয়েক মাস প্রতিদিন প্রায় একশ’র অধিক গাড়ি মাটি লুট করে টাইলস কোম্পানিতে বিক্রি করছে। স্থানীয় কৃষকদের নাম মাত্র মাটির দাম দিয়ে কৃষি জমি ধ্বংস করে সিন্ডিকেটের সদস্যরা কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, মাটি লুটের এ সিন্ডিকেটের প্রতিরোধ গড়ে তোলা না গেলে এলাকায় কোন কৃষি জমি থাকবে না। রাস্থা ঘাট ভেঙ্গেচুড়ে ক্ষতবিক্ষত হয়ে গেছে। বৃত্তিবাড়ী থেকে পিরোজপুর পর্যন্ত পাকা রাস্তাটি ডোবায় পরিনত হয়েছে। সাধারণ মানুষের চলাচল করা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে। ঘটছে দূর্ঘটনা। মাটি লুট বন্ধ করে কৃষি জমি ও রাস্তা ঘাট রক্ষার দাবী এলাকাবাসীর।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

এ ব্যাপারে কুড়াগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক সরকার জানান, মাটি কাটতে না করেছি। আমার অজান্তেই তারা কাটে। গত বছর পর্যন্ত মাটি কাটা হয়েছে এ বছর কাটে কিনা জানি না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন গত কাল দু’টি ট্রাক মাটিসহ আটক করা হয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেন। রাস্তা ঘাট ও কৃষি জমি নষ্টে বিষয়ে আমি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেখেছি।

মধুপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীমা ইয়াসমীন জানান, গত রাতে গিয়ে মাটিসহ দু’টি ট্রাক আটক করে এনেছি ও একটি ভেকু স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় দিয়েছি। অর্থ দন্ড দিবে।

ব্রেকিং নিউজঃ