ভূঞাপুরে সরকারি ওষুধ মিলল ডোবায় ॥ স্বাস্থ্য-সহকারীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ

62

স্টাফ রিপোর্টার ॥
ডোবায় পাওয়া গেল টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা কমিউনিটি ক্লিনিকের সরকারি ওষুধ। শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের রেহাই গাবসারা কমিউনিটি ক্লিনিকের পাশের এক ডোবায় অসংখ্য ওই পরিত্যক্ত ওষুধগুলো পাওয়া যায়। বিতরণ না করে ফার্মেসিতে ওষুধ বিক্রি, স্বজনদের দেয়া, যথাসময়ে ক্লিনিকে না আসাসহ নানা অভিযোগ উঠেছে ওই কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্য সহকারী পদে কর্মরত নূরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। নূরুল ইসলাম উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নের রেহাই গাবসারা চরাঞ্চলের গাবসারা গ্রামের বাসিন্দা। শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর)গাবসারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ আলম আকন্দ শাপলা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী বাবু ও রহিম টিনিউজকে বলেন, শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে ক্লিনিকের পাশের একটি ডোবায় ওষুধ ধরণের কিছু দেখতে পাই। কাছে গিয়ে দেখি সরকারি ওষুধ। পরে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এসে ওষুধগুলো উদ্ধার করে ইউপি সদস্যের কাছে জমা দেন। ওষুধগুলো ফেরত না দেয়ায় আমাদেরসহ ইউপি সদস্যকে হুমকি দিচ্ছেন স্বাস্থ্য সহকারী নূরুল ইসলামসহ তার লোকজন।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্বাস্থ্য সহকারী নূরুল ইসলাম বেপরোয়া। তিনি থাকেন ভূঞাপুর শহরে। মাঝে মধ্যে ক্লিনিকে আসলেও রোগীদের ঠিকমত ওষুধ দেন না। ওষুধের জন্য গেলে সরকারিভাবে বরাদ্দ নেই বলে ফিরিয়ে দিয়ে নিজেদের লোকজনকে ওষুধ দেন। ক্লিনিকে পর্যাপ্ত ওষুধ থাকা সত্ত্বেও বিতরণ না করার ফলে ক্লিনিকেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যায় ওষুধগুলো। এরপরও রাতের কোন এক সময়ে ক্লিনিকের পাশের ডোবায় ওষুধগুলো ফেলে দেন স্বাস্থ্য সহকারী নূরুল ইসলাম বা তার সহকারীরা। নূরুল ইসলাম স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না।

সরকারি ওষুধ ফেলে দেয়ার ঘটনার বিষয়টি জানতে চাইলে গাবসারা কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্য সরকারী নূরুল ইসলাম টিনিউজকে বলেন, এ ক্লিনিকে আমি একা না, আরও চারজন আছে। নিউজ করবেন না, আপনার সাথে দেখা করব।

ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য খোরশেদ মিয়া টিনিউজকে বলেন, স্থানীয়রা ওষুধগুলো উদ্ধার করে আমাকে সংবাদ দিলে আমি চেয়ারম্যানকে জানাই। চেয়ারম্যান এসে আমার হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন। স্বাস্থ্যকর্মী নূরুল ইসলাম ওষুধগুলো নিতে আসলে আমি দিতে অস্বীকার করায় রাগারাগি করে চলে যায়। পরে ইউপি চেয়ারম্যান আমাকে ওষুধগুলো স্বাস্থ্যকর্মীকে দেয়ার কথা বললে চেয়ারম্যান সাহেবকে লিখিত দিয়ে ওষুধগুলো বুঝে নেয়ার জন্য বলি।

 

গাবসারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ আলম আকন্দ শাপলা টিনিউজকে জানান, শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে পরিত্যক্ত অবস্থায় মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধগুলো উদ্ধার করে স্থানীয়রা। সেগুলো এখন আমার হেফাজতে রয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে অবগত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোবহান হোসেন টিনিউজকে জানান, সরকারি ওষুধ ফেলে দেয়ার ঘটনাটি প্রমাণিত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ