ভূঞাপুরে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ না পেয়ে মামলা

180

frgrhgukmgiykiilkgyuld4স্টাফ রিপোর্টারঃ
টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার নিকরাইল বেগম মমতাজ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ না পেয়ে ক্ষোভে বর্তমান প্রধান শিক্ষক একেএম ইকবালের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন ইব্রাহীম তালুকদার নামে রুহুলী দাখিল মাদ্রাসার এক শিক্ষক। আর এ নিয়ে ভূঞাপুরের বিভিন্ন শিক্ষক মহলে নানা সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার নিকরাইল বেগম মমতাজ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য এ বছরের গত ২৯ এপ্রিল পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে ওই বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক একেএম ইকবাল ও রুহুলী দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক ইব্রাহীম তালুকদারসহ ১২ জন প্রার্থী আবেদন করেন। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ১৪ আগষ্ট নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। আবেদন করা সব ক’জন প্রার্থীই নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেন। পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করায় একেএম ইকবালকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়ার সুপারিশ করে নিয়োগ বোর্ড। নিয়োগ বোর্ডে উপস্থিত ছিলেন ডিজির প্রতিনিধি টাঙ্গাইলের সন্তোষ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক তোফাজ্জল হোসেন, ভূঞাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ শাহীনুর ইসলাম, বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান পাভেল, বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্য সচিব রাশিদা খাতুন এবং অভিভাবক প্রতিনিধি আব্দুর রশিদ তালুকদার। নিয়োগ বোর্ডের সুপারিশক্রমে গত ২০ আগষ্ট প্রধান শিক্ষক পদে একেএম ইকবালকে নিয়োগ দেন বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ। গত ২২ আগষ্ট তিনি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে যোগ দেন। এতে ক্ষুব্ধ হন নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেয়া ইব্রাহীম তালুকদার। এক মাসেরও বেশি সময় পর গত ২৯ সেপ্টেম্বর তিনি প্রধান শিক্ষক একেএম ইকবালসহ নিয়োগ বোর্ডের সদস্য ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের বিরুদ্ধে টাঙ্গাইল কোর্টে মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি চলমান রয়েছে।
মামলার বিষয়ে ইব্রাহীম তালুকদার বলেন, নিয়োগের জন্য আমি অনেক টাকা দিয়েছিলাম। ৫ লাখ টাকা ফেরৎ নিয়েছি। এখন আমার টাকা নিয়ে যুদ্ধ নয়, পদের জন্য যুদ্ধ করছি। সর্বশেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাবো।
বর্তমান প্রধান শিক্ষক একেএম ইকবাল বলেন, নিয়োগ পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করায় নিয়োগ বোর্ডের সুপারিশক্রমে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ আমাকে নিয়োগ দিয়েছে। মামলা দিয়ে অযথা হয়রানী করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান পাভেল বলেন, সরকারি সকল বিধি মেনেই প্রধান শিক্ষক পদে একেএম ইকবালকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ