বৃষ্টিভেজায় ধান ক্ষেতে ছোট কিশোরদের ফুটবল খেলা

84

মোজাম্মেল হক ॥
ফুটবল মানেই মজার খেলা। ফুটবল দেখলে সবারই ইচ্ছে করে ফুটবলে একটা লাথি দিতে! আর বৃষ্টির মধ্যে কিংবা বৃষ্টির পর যদি ফুটবল খেলা, সেটা আরো বেশী মজা! সর্বশক্তি দিয়ে বলে কিক মেরেও বলকে এগিয়ে না নিতে পারা, কিংবা হালকা ছোঁয়ায় গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে গোল করা। শরীরের ভারসাম্য ঠিক রাখতে না পেরে পিছলে পরা, বল সামনে রেখে পানিতে লাথি দিয়ে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের গায়ে কাঁদা পানি ছিটিয়ে দেওয়া। গোল বন্যায় একদলকে ভাসিয়ে দেওয়া কিংবা বল কাঁদা মাঠে আটকে গিয়ে নিশ্চিত গোল বঞ্চিত হওয়া! এগুলি বর্ষাকালে বৃষ্টিভেজা ফুটবল খেলার কথা।

 

বৃষ্টিতে ফুটবল খেলা খুব প্রচলিত এক আনন্দ। বৃষ্টি নামলেই ফুটবল প্রেমিদের মনে নামে আনন্দের বৃষ্টি। কারন খেলা হবে। যারা নিয়মিত খেলে না তারাও আজকে খেলবে। খেলার ভালমন্দ বুঝার দরকার নেই মজা লাগলেই হলো। মাঠে গড়াগড়ি দেওয়া, পিছলে যাওয়া, গায়ে কাঁদা মাখা। সে এক মজার ফুটবল। তবে এই আনন্দটা শহর গ্রামের মধ্যে আলাদা। শহরের প্রধান সমস্যা মাঠ নেই। থাকলেও জলাবদ্ধতা কিংবা নিয়মের জালে আটকা এবং সংখ্যায় কম। কিন্তু গ্রামে এ কোন সমস্যা নেই। মাঠ না থাক, বড় ক্ষেত রয়েছে। যেখানে ধান কাটা কিংবা পাট কাটা গোছাও ফুটবল খেলা থেকে দমাতে পারে না। বৃষ্টিতে ফুটবলের সবচেয়ে ভালো দিকটা হচ্ছে সামাজিত যোগাযাগ। প্রতিদিনের জীবনে কারো সাথে দেখা হোক আর নাই হোক এই দিনটাতে সবার দেখা হয়। সবাই ঝগড়া বিবাদ ভুলে গিয়ে এক সাথে খেলা। নতুন করে মিল মহব্বত তৈরী হওয়া।

 

টাঙ্গাইল সদরের গালা ইউনিয়নের একটি ধান ক্ষেতে ছোট্র কিশোররা প্রতিদিন বিকেলে ফুটবল খেলে। নিয়ম কানুন জানা তেমন তাদের প্রয়োজন নেই, ফুটবলটা বিপক্ষ দলের বারে প্রবেশ করাতে পারলেই হলো। এ খেলা বৃষ্টি নামলে আরো ভাল করে চলে। বাড়ীতে গিয়ে বাবা মা বকুনির ভয় তখন তাদের নেই। এ রকম এক বিকেল খেলা শুরু হলে কিছুক্ষনের মধ্যে বৃষ্টি চলে আসলেও ওদের খেলা বৃষ্টিতে চলে। চলে বৃষ্টির পর কাঁদা পানিতে। সব মানুষই বৃষ্টিতে শখ করে ফুটবল খেলেছেন এবং এই বৃষ্টিতে ভিজে ফুটবল খেলার মজা উপভোগ করেছেন। গালা ইউনিয়নের গালা আওয়ার সোসাইটির দেলোয়ার হোসেন টিনিউজকে বলেন, বৃষ্টিতে ভিজে ফুটবল খেলার মজা সবসময়ই মজার।

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ