বিটেক ৫ম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের র‌্যাগ ডে অনুষ্ঠিত

126

BTEC_04বিটেক সংবাদদাতাঃ
আনন্দ-উৎসবের মধ্য দিয়ে টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে (বিটেক) র‌্যাগ ডে অনুষ্ঠিত হয়েছে।  বিটেক ৫ম ব্যাচের (২০১১-২০১২ শিক্ষাবর্ষ) আয়োজনে এ র‌্যাগ ডে উৎসব উদযাপন করেন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। এ উপলক্ষ্যে পুরো ক্যাম্পাস রঙ-বেরঙের বেলুন দিয়ে সজ্জিত করার পাশাপাশি ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীন সড়কগুলোতেও নানা ডিজাইনের আলপনা এঁকে ফুটিয়ে তোলেন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।
রোববার সকালে নানা রঙে মুখ রাঙিয়ে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী বের করেন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। এ সময় বিটেকের প্রিন্সিপাল ড. ইঞ্জিঃ  আতাউল ইসলামসহ সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। র‌্যালীটি প্রশাসনিক ভবন থেকে আরম্ভ হয়ে ৬ দফা চত্বর, কটন স্পিনিং শেড, জুট স্পিনিং শেডসহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন অভ্যন্তরীন সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় প্রশাসনিক ভবনে এসে শেষ হয়। র‌্যালী শেষে ঘন্টাব্যাপী চলে পটকাবাজি, রং মাখামাখি, কাদা ছোড়াছুড়ি খেলা।  এরপর শিক্ষার্থীরা আনন্দভ্রমণে বের হন।  শিক্ষার্থীরা ৪টা পিক আপ ভ্যানে করে কালিহাতীতে নিজস্ব ক্যাম্পাসসহ টাঙ্গাইল শহর ঘুরেন। এরপর তারা কালিহাতী উপজেলা, মধুপুর গড় হয়ে যমুনা রিসোর্টে যান। সেখানে মধ্যাহ্ন ভোজের পর চলে মজাদায়ক গেইম শো (দৌড় প্রতিযোগিতা, মোরগ লড়াই, সেরা খাদক, হাঁড়ি ভাঙ্গা, বালিশ খেলা)। এদিকে শনিবার রাতে আবাসিক হলের প্রতি রুমে ৩০ সেকেন্ড ব্যাপ্তী ব্যতিক্রমী ভ্রাম্যমান ড্যান্স কর্মসূচী উদযাপন করেন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। এতে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা বিস্ময়ে অভিভূত হয়ে পড়েন।
বিটেক প্রিন্সিপাল ড. ইঞ্জিঃ আতাউল ইসলাম বলেন, “তোমরা একেকজন এই ক্যাম্পাসের প্রতিনিধি। কর্মজীবনে যেখানেই যাও প্রতিষ্ঠানের সুনাম রক্ষা করবে। তিনি কোর্স সমাপনকারী শিক্ষার্থীদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করেন।”
শিক্ষার্থীরা জানান, “আজ আমাদের শিক্ষা জীবনের শেষ দিন। প্রিয় ক্যাম্পাস আর বন্ধুদের ছেড়ে চলে যাবো ভাবতেই বুকের ভেতর হাহাকার করে উঠছে। সময়টা যেন খুব তাড়াতাড়ি চলে গেল। তবুও শেষ সময়টুকুতে আনন্দ-ফূর্তি, মাতামাতি করে দুঃখ ভোলার চেষ্টা করছি।”
দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে ৫ম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা আরো বলেন, “বড় ভাই আর ছোট ভাইদের মধ্যকার মেলবন্ধনটা খুব মিস করবো। হয়তো একসাথে চায়ের কাপে আর ঝড় উঠবে না। চলবে না তর্ক, হাসাহাসি। জমবে না আড্ডা। ক্যাম্পাস জীবন থেকে যা পেয়েছি তা কখনও ভোলার নয়।”
সন্ধ্যা ৭ টা থেকে ক্যাম্পাসে চলে আতশবাজি পোড়ানো উৎসব। এরপর র‌্যাগ ডের আনন্দ সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে অডিটোরিয়ামে জমকালো সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। শেষে রাত ১০ টায় ৬ দফা চত্বরে ৫ম ব্যাচের বিগত দিনগুলোর বিভিন্ন কার্যক্রমের উপর একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ