নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িত ও মাদকাসক্তরা সখীপুরে ছাত্রলীগের তিন কমিটিতে!

173

তথ্য সূত্র- দৈনিক সমকাল-
দলিল লেখক, নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িত ও মাদকসেবীসহ বিতর্কিতদের নিয়ে টাঙ্গাইলের সখীপুরে ছাত্রলীগের তিন কমিটি গঠন করার অভিযোগ উঠেছে। এ কমিটি প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন পদবঞ্চিতরা।

জানা যায়, গত (৩০ সেপ্টেম্বর) রাতে টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলা, সরকারি মুজিব কলেজ ও সখীপুর শহর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। একে বর্তমান সংসদ সদস্যের পারিবারিক কমিটি ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হাসানের পকেট কমিটি উল্লেখ করে বিক্ষোভ করেছেন পদবঞ্চিতরা। তবে জেলা ছাত্রলীগের দাবি, দীর্ঘদিনের পরীক্ষিতদেরই নবগঠিত কমিটিতে পদায়ন করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের একটি পক্ষ ছাত্রলীগের নামে গুজব ছড়াচ্ছে। সখীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের দাবি, তাদের অবহিত না করেই জেলা ছাত্রলীগ কমিটি ঘোষণা করেছে।




ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, সখীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক রাসেল আল মামুন একজন দলিল লেখক। ছাত্রলীগের এ আহ্বায়কের একটি নারী কেলেঙ্কারির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এছাড়া যুগ্ম আহ্বায়ক আল মাহমুদ প্রান্ত ও সাইফুল ইসলাম হৃদয়, শহর ছাত্রলীগের সভাপতি রেজভী শিকদার শান্ত টাঙ্গাইল-৮ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জোয়ারুল ইসলাম জোয়াহেরর নাতি। শহর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসানের প্রকাশ্যে মাদক সেবনের একটি ছবিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। (এসব ভিডিও এবং ছবি দৈনিক সমকালের কাছে সংরক্ষিত আছে)।




এছাড়া সরকারি মুজিব কলেজ ছাত্রলীগের খন্দকার রকিবুল হাসান বিজয় সংসদ সদস্য জোয়ারুল ইসলাম জোয়াহেরের ভাতিজা। আর সাধারণ সম্পাদক সুমন মিয়া তাঁর জামাইয়ের ভাতিজা। কমিটি ঘোষণার পর থেকে পদবঞ্চিতরা উপজেলা শহরে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন।

নবগঠিত উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জুয়েল রানা বলেন, রাতের আঁধারে কমিটি গঠনের মাধ্যমে বিতর্কিতদের পদায়ন করে ছাত্রলীগকে কলঙ্কিত করা হয়েছে। উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক দলিল লেখক আর শহর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাদকাসক্ত। এছাড়া কমিটির অন্যরা সাধারণ সম্পাদক আর বর্তমান সংসদ সদস্যের আত্মীয়স্বজন। পারিবারিক ও পকেট কমিটি করায় ত্যাগী নেতারা বাদ পড়েছেন। আমরা এ কমিটি প্রত্যাখ্যান করেছি। কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন না করা পর্যন্ত আমরা বিক্ষোভ অব্যাহত রাখব।

এসব অভিযোগ নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রাসেল আল মামুনকে ফোন দেওয়া হলে তাঁকে পাওয়া যায়নি।




এ বিষয়ে টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন বলেন, সখীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আগের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তাঁকে ফাঁসানোর জন্য প্রতিপক্ষ একটি রুমের মধ্যে আটক করে মেয়ে দিয়ে নাটকের সৃষ্টি করে। তাঁর বিরুদ্ধে দলিল লেখকের কাজ করার অভিযোগও মিথ্যা। আর শহর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসানের মাদকের ছবিটিও এডিট করা।
-তথ্য সূত্র- দৈনিক সমকাল।

 

ব্রেকিং নিউজঃ