নাগরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রেমিক-প্রেমিকাসহ ৩ জন নিহত

420

স্টাফ রিপোর্টার, নাগরপুর ॥
পালিয়ে বিয়ে করা হলো না বাপ্পি ও সুকন্যার। ঘাতক ট্রাক কেড়ে নিল প্রেমিক-প্রেমিকাসহ ৩ জনের প্রাণ। প্রেমিকের হাত ধরে বাড়ি থেকে পালিয়ে ঘর বাঁধতে চেয়েছিলেন কিশোর বাপ্পি ও কিশোরী সুকন্যা। কিন্তু পথিমধ্যে টাঙ্গাইল-আরিচা আঞ্চলিক মহাসড়কের নাগরপুর উপজেলার দাস পাড়ায় ঘাতক ট্রাক প্রেমিক-প্রেমিকাসহ তাদের মোটরসাইকেলে থাকা বন্ধু সানিকেও চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই সানি ও হাসপাতালে বাপ্পি এবং সুকন্যা মারা যায়। তারা রাতের আঁধারে বাড়ি থেকে পালিয়ে বিয়ে করতে যাচ্ছিলেন বলে জানিয়েছেন নিহত মেয়ের চাচা নিরব মিয়া।
মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে টাঙ্গাইল-আরিচা আঞ্চলিক মহাসড়কের নাগরপুর উপজেলার সহবতপুর ইউনিয়নের দাসপাড়া এলাকায় এ মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। এতে মোটরসাইকেলের তিন আরোহী নিহত হয়। নিহতরা হলো- দেলদুয়ার উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে শুভ আক্তার সানি (১৮), টাঙ্গাইল সদর উপজেলার পৌর শহরের কাগমারা এলাকার আব্দুল মান্নানের মেয়ে মমতা হিয়া সুকন্যা (১৫) ও করটিয়া বাইপাস এলাকার মোস্তফা মিয়ার ছেলে বাপ্পি (১৮)। নিহত সুকন্যা টাঙ্গাইলের বিবেকানন্দ উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বন্ধুর মোটরসাইকেলে নাগরপুরের ধুবড়িয়া গ্রামে মেয়ের নানাবাড়ি থেকে পালিয়ে দুই কিশোর-কিশোরী টাঙ্গাইলের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি কাঠ বোঝাই ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-১৫২৭৮৭) ওই মোটরসাইকেলকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল চালক সানি নিহত হয়। পরে হাসপাতালে নেয়ার পর বাপ্পি ও সুকন্যা মারা যায়।
এ বিষয়ে নাগরপুর থানার ওসি (তদন্ত) বাহালুল খান টিনিউজকে জানান, পুলিশ দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে নিহতদের লাশ থানায় নিয়ে আসে। বুধবার (১১ নভেম্বর) দুপুরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ট্রাক ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। তবে ঘাতক ট্রাকের চালক পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় এখনও কোন মামলা হয়নি।

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ