ধনবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দীর্ঘ ৯ বছর পর পূর্ণাঙ্গ যাত্রা শুরু ॥ সীমাহীন দুর্ভোগের অবসান

163

Tangail Dhanbari Hospital Pic- 08-11-15ধনবাড়ী সংবাদদাতাঃ

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলা পরিষদ ঘোষনার দীর্ঘ ৯ বছর পর চিকিৎসা সেবায় এ অঞ্চলের মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগের অবসান হতে যাচ্ছে। অবশেষে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে প্রায় ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে চার তলা বিশিষ্ট ৫০ শয্যার একটি আধুনিক মানের সরকারি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। যেখানে  চিকিৎসা সেবায় প্রায় সব ধরনের সুযোগ-সুবিধাই বিদ্যমান থাকবে।
জানা যায়, বিগত ২০০৬ সালের মে মাসে নিকারের বৈঠকে টাঙ্গাইলের অন্যতম মধুপুর উপজেলাকে ভাগ করে ১২৭.৯৫ বর্গ কি: মি: আয়তন নিয়ে ধনবাড়ীকে আলাদা উপজেলা ঘোষনা করা হয়। নিকারের বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০০৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর থেকেই এ উপজেলার কার্যক্রম শুরু হয়। সেই থেকে টাঙ্গাইল-জামালপুর রোডের কাছে স্থানীয় নিউ মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় ৬/৭ টি কক্ষ ভাড়া নিয়ে স্বল্প পরিসরে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কাজ চলতে থাকে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। এতে ছিলনা এ্যাম্বলেন্স, ছিলনা কোন পরীক্ষগার, ছিলনা কোন অপারেশন থিয়েটার। রোগী ভর্তির জন্য কোন বেডও ছিল না। শুধু নাই আর নাই এর মধ্যে সীমাবদ্ব ছিল উপজেলার চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম।
ধনবাড়ী পৌরসভার মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন জানান, এ অঞ্চলের মানুষের চিকিৎসা সেবা নিতে টাঙ্গাইল কিংবা ময়মনসিংহ যেতে হতো। কিন্তু স্থানীয় জনগনের নেতা সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই ধনবাড়ীতে একটি অত্যাধুনিক মানের ৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা পাওয়ায় এ অঞ্চলের গরীব-দু:খী মানুষের চিকিৎসা সেবায় সীমাহীন কষ্টের অবসান হতে চলছে।
এ বিষয়ে স্থানীয় এমপি সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি জানান, এ অঞ্চলের মানুষের কষ্টের কথা জেনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমেই এখানে একটি অত্যাধুনিক মানের ৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতাল করে দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ হাসপাতালটি ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করে ছিলেন ২০১২ সালের ২৮ নভেম্বর। যেটি উদ্বোধন করা হয়েছে গত ২৫ অক্টোবর মঙ্গলবার দুপুরে। তিনি আরও জানান, মফস্বল এলাকায় এ হাসপাতালটিতে চিকিৎসা সেবার প্রায় সব ধরণের সুযোগ-সুবিধাই থাকবে। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় তার সাথে ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. দ্বীন মোহাম্মদ নুরুল হক, স্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহমেদুল কবীর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ডা. কামরুল ইসলাম।
এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. দ্বীন মোহাম্মদ নুরুল হক জানান, এ হাসপাতালটি আগামী কিছু দিনের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ হাসপাতালে রূপ নেবে। তিনি উপজেলা স্বাস্ত্য ও প:প: কর্মকর্তা ডা. শাজাহান কবীরকে অনতি বিলম্বে এ হাসপাতালের বাকী সমস্যাদি ও ঘাটতিগুলো জানানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। যাতে করে ঘাটতিগুলো অতি দ্রুত পূরণ করা যায়। এতে করে অতি সহজেই প্রত্যন্ত এ অঞ্চলের মানুষ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন।
এ ব্যাপারে ধনবাড়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মীর ফারুক আহমাদ জানান, দীর্ঘদিন পর অবহেলিত এ জনপদে এ ধরনের অত্যাধুনিক মানের একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা হওয়ায় এ অঞ্চলের মানুষের চিকিৎসা সেবায় একদিকে যেমন দীর্ঘদিনের কষ্ট লাঘব হবে। অপরদিকে অনায়াসেই গ্রামের গরীব-দু:খী মানুষেরা এখানে এসে সহজে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন। তিনি এ হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় এমপি ড. আব্দুর রাজ্জাককে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান।

ব্রেকিং নিউজঃ