ধনবাড়ী শহরে বেড়েই চলেছে যাটজট ॥ কর্তৃপক্ষ উদাসীন

36

স্টাফ রিপোর্টার ॥
চলাচলের সুবিধার্থে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে দুই লেনের রাস্তা করা হয়েছে চার লেনে। কোন নিয়ম-কানুন না থাকায় বেড়ে চলছে যাটজট। এতে সময় ব্যয় হচ্ছে শিক্ষার্থী, কর্মজীবি ও চলাচলকারীদের। বিপাকে রয়েছে জরুরী সেবার গাড়ীও। বাসষ্ট্যান্ডটি বিভিন্ন পরিবহনের দখলে থাকায় এক লেনেই চলছে পরিবহন। হাঁটা-চলাচলের ফুটপাতও বিভিন্ন ব্যবসায়ীর দখলে। যাটজট নিরসনে প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ উদাসিন। ট্রাফিক পুলিশ ও ওভার ব্রিজ না থাকায় ভোগান্তি বেড়েছে কয়েক গুণ।
টাঙ্গাইল-জামালপুর মহাসড়কের রোডে শেরপুর, জামালপুর জেলাসহ আশপাশের কয়েক উপজেলার মানুষজন চলাচল করে থাকে। ধনবাড়ী বাসষ্ট্যান্ডের পূর্ব পাশে আসিয়া হাসান আলী মহিলা ডিগ্রী কলেজ, নওয়াব ইনস্টিটিউশন, সাকিনা মেমোরিয়াল উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, সরকারি নওয়াব প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঐতিহ্যবাহী নওয়াব বাড়ী। এছাড়াও রয়েছে উপজেলা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পল্লী বিদ্যুৎ অফিস, জেলা ডাক বাংলো ও নওয়াব আলী ও হাসান আলী রিসোর্ট এবং উপজেলা রিসোর্ট সেন্টার।
অপরদিকে, ধনবাড়ী চৌরাস্তা থেকে বাস ষ্ট্যান্ডে পৌঁছতে লাগে মাত্র দুই মিনিট। কিন্তু বাসষ্ট্যান্ডে পৌঁছাতে সময় লাগে ২০ থেকে ৩০ মিনিট। রাস্তার দু‘পাশের ববসায়ীরা ফুটপাত দখল করে ব্যবসার পসরা সাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে সিহাব ও আশরাফ নামের দুটি সব্জির আড়ৎ থাকায় যানজট দিনদিন বেড়েই চলছে। এ আড়ৎগুলোতে উপজেলার কৃষকদের উৎপাদিন কৃষি পন্য বিক্রির জন্য সকালে নিয়ে আসে বিভিন্ন পরিবহনে। এ সময় দেখা দেয় আরও তীব্র যাটজন। পায়ে হেটে বাস ষ্টান্ড এলাকায় আসা দায়।
সরেজমিনে দেখা যায়, ধনবাড়ী বাসষ্ট্যান্ড এলাকাটি চার লেনের রাস্তা। রাস্তা দু‘পাশে যাত্রিবাহী বাস, অটোরিকশা-ভ্যান ও সিএনজি গাদাগাদি করে তিন লেন দখল করে রেখেছে। এজন্য এক লেন দিয়ে চলছে বিভিন্ন পরিবহন। বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় নেই কোন সর্তকতামূলক সাইন বোর্ড ও পুলিশি তৎপরতা। কিছুক্ষণ পরপরই সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট। এ যানজট থেকে রেহাই পেতে নেই কোন অভার ব্রিজ ও ট্রাফিক পুলিশ ব্যবস্থা। সাইদুর রহমান ও আজহার মন্ডল নামের দুই পথচারী টিনিউজকে বলেন, আমাদের প্রতিদিনই বাসষ্ট্যান্ড হয়ে কাজে যেতে হয়। কোন নিয়ম-কানুন না থাকায় যার-যার ইচ্ছা স্বাধীন গাড়ী চালায়। বাসষ্ট্যান্ডটি চার লেনের হলেও বিভিন্ন পরিবহন রেখে দখল করে রাখে। প্রশাসনের উদাসিনতায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এ ভোগান্তি থেকে আমরা কবে রেহাই পাব? আসিয়া হাসান আলী মহিলা ডিগী কলেজের শিক্ষার্থী ঋতু সরকার ও দোলোয়ারা বেগম টিনিউজকে বলেন, ধনবাড়ী চৌরাস্তা হয়ে আমাদের কলেজে যেতে হয়। রাস্তার পাশে সিহাব ও আশরাফ নামের দুটি সব্জির আড়ৎ এবং রাস্তার দু‘পাশে অন্যান্য ব্যবসায়ীরা রাস্তা করে ব্যবসা করায় এ যানজটের সৃষ্টি। কাজেই আমাদের কলেজে যেতে সময় চলে যায়। আবির হোসের নামের আরেক পথচারী টিনিউজকে বলেন, রাস্তার দু’পাশের ব্যবসায়ীরা ফুটপাত দখল করে রাখায় কেউ ফুটপাতে ব্যবহার করতে পারছে না। এগুলো চলাচলের উপযোগী করলে ভোগান্তি কমবে। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করি। নাসির উদ্দিন ও জেসমিন আক্তার নামের দুই কর্মজীবি টিনিউজকে জানান, এই বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় যাটজট নিরসনে অতি দ্রুত ট্রাফিক পুলিশ ও অভার ব্রিজ প্রয়োজন।
ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চান মিয়া টিনিউজকে জানান, বিভিন্ন জায়গার অটোরিকশা-ভ্যান, সিএনজি ও যাত্রিবাহী বাস চালকরা রাস্তায় গাড়ী রাখায় ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে। চালকদের বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও মানছে না।
যাটজট নিরসনের ব্যাপারে জানতে চাইলে ধনবাড়ীর পৌরসভার মেয়র মুহাম্মদ মনিরুজ্জামান বকল টিনিউজকে বলেন, বাসষ্ট্যান্ড এলাকার যাটজটটি বর্তমানে তীব্র আকার ধারণ করেছে। মেইন রাস্তাতে গাড়ী না রাখতে নিষেধ করা হচ্ছে। প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেব।
এ বিষয়ে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামিউল হক টিনিউজকে বলেন, বিষয়টি দ্রুতই খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ