ধনবাড়ীতে দুইটি বাল্য বিয়ে বন্ধ ॥ এক মাসের কারাদন্ড ও জরিমানা

162

Ballo-Bea-md20150731153200ধনবাড়ী প্রতিনিধিঃ

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে বন্ধ হয়েছে দু’টি বাল্যবিয়ে। সেই সাথে একজনকে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে ধনবাড়ী পৌরসভার চাতুটিয়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের স্কুল পড়ুয়া ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী সাবিনা আকতার শিখার (১৪) সাথে জামালপুর জেলা সদরের রনরামপুর গ্রামের জাবেদ আলীর পুত্র হাসান আলীর (২২) বিবাহের আনুষ্ঠানিকতা চলছিল। ঢাকায় গার্মেন্টেসে চাকুরিরত বর হাসান আলী যথারীতি বরযাত্রীসহ কনের বাড়ীতে হাজির হয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শুরু করে। এ সময় গোঁপন সূত্রে খবর পেয়ে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম আরা রিনি ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাহিদা সুলতানা পুলিশসহ কনের বাড়ীতে গিয়ে হাজির হন। অবস্থা বেগতিক দেখে বিয়ের আয়োজনকারীসহ বরযাত্রীরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে বর ও কনেকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বর হাসান আলীকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন এবং স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আব্দুল মজিদ মিন্টুর মাধ্যমে কনের পক্ষের মুচুলিকা নিয়ে বাল্য বিয়েটি বন্ধ করা হয়।
অপরদিকে বৃহস্পতিবার রাতেই উপজেলার ধোপাখালী ইউনিয়নের নরিল্যা গ্রামের ফরমান আলীর স্কুল পড়–য়া ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী মিতু বেগমের (১৫) সাথে পাশ্ববর্তি মধুপুর উপজেলার আমিল গ্রামের শফিকুল ইসলামের পুত্র মিজানুর রহমানের (২৩) বিবাহের আনুষ্ঠানিকতা চলছিল। অনুরূপভাবে গোপনসূত্রে খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৮টার দিকে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম আরা রিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাল্য বিয়ে বন্ধ করার নির্দেশ দেন এবং বর-কনেকে আটক করে নিয়ে আসেন। পরে ভ্রাম্যমান আদালত বসালে কনের মা-বাবা ভুল বুঝে বিয়ে দিতে ছিলেন বলে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং তারা আর ছোট মেয়েকে বিয়ে দিবেন না বলে লিখিত প্রতিশ্রুতি দেন। এ সময় আদালত কনে পক্ষকে খালাস দিয়ে বরপক্ষকে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন।

ব্রেকিং নিউজঃ