দেলদুয়ারে গৃহবধূ খুন ॥ আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা পুলিশের

119

খুনদেলদুয়ার প্রতিনিধিঃ
টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে হোসনে আরা (৩২) নামে এক গৃহবধূ স্বামীর হাতে খুন হয়েছে। স্বামীর নাম রউফ মিয়া (৪০)। বাড়ি দেলদুয়ার উপজেলার ডুবাইল ইউনিয়নের বারকুড়িয়া গ্রামে। বুধবার সকালে স্বামীর বাড়িতে ঘটনাটি ঘটেছে। এদিকে প্রভাবশালী মহলের চাপে থানা পুলিশ খুনের ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে বলে বাদী পক্ষের অভিযোগ। ঘাতক স্বামীকে পুলিশ তাৎক্ষণিক আটক করেছে।
বুধবার দেলদুয়ার থানা হাজতে গৃহবধূর স্বামী রউফ মিয়া সাংবাদিকদের কাছে তার বউকে পিটিয়ে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছে। গৃহবধূর দুই কান কাটা। মাথার নীচ থেকে অঝোরে রক্ত ঝরছে। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তারপরও থানার এসআই মোশারফ হোসেন অপমৃত্যু মামলা করার জন্য বাদীপক্ষকে চাপ দেয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাদী স্বাক্ষর না করে থানা থেকে চলে আসে।
জানা যায়, মির্জাপুর উপজেলার গুনুটিয়া গ্রামের হতদরিদ্র মৃত হোসেন মিয়ার মেয়ে হোসনে আরার (৩২) সাথে দেলদুয়ারের বারকুড়িয়া গ্রামের ফটিক মিয়ার ছেলে রউফ মিয়ার ১২ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের জিহাদ (৫) নামে এক ছেলে রয়েছে। মেয়েটির ভাই আলামিন ও প্রতিবেশী হাবীব অভিযোগ করেন, বিয়ের পর থেকে হোসনে আরাকে তার স্বামী, শ্বশুর, শ্বাশুরী মিলে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করতো। দরিদ্র এবং এতিম বলে অনেক কষ্ট সহ্য করে হোসনে আরা স্বামীর বাড়িতে থাকতো। কিন্তু ঘাতক স্বামী রউফ পিটিয়ে তাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে প্রচার করলেও আত্মহত্যার কোন আলামত ছিল না বলে বাদীপক্ষ এবং স্থানীয় এলাকাবাসী জানান।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন টিনিউজকে বলেন, অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করা হলেও ময়না তদন্ত রিপোর্টে খুনের আলামত পাওয়া গেলে মামলাটি খুনের মামলা হিসেবে স্থানান্তর করা হবে।
এ বিষয়ে দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ মোশাররফ হোসেন টিনিউজকে বলেন, আমি বাইরে ছিলাম। বাদীপক্ষ আমাকে মোবাইলে ঘটনা জানিয়েছে। সবকিছু শুনে বাদীপক্ষের অভিযোগ সঠিক মনে হয়েছে। আমি থানায় এসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

ব্রেকিং নিউজঃ