টাঙ্গাইল বেবিস্ট্যান্ডে যানজটে দুর্ভোগ চরমে

117

স্টাফ রিপোর্টার ॥
রাস্তার পাশে থেকে ও কখনো কখনো রাস্তার ওপরে দাঁড়িয়েও যাত্রী উঠানামা করানো ফলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এ এলাকায় যানজট লেগেই থাকে । টাঙ্গাইল শহরের বেবিস্ট্যান্ড এলাকায় যানজট লেগে থাকে দিনের বেশির ভাগ সময়। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হয় এই সড়কে চলাচলকারীদের। সিএনজি চালিত অটোরিকশা রাস্তার ওপর রাখায় এ যানজটের সৃষ্টি হয় বলে জানিয়েছে ভুক্তভোগীরা ।
কয়েকজন পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শহরে কাগমারী সড়কের কেন্দ্রীয় গোরস্তানের মোড় থেকে দু-চারটি টেম্পো ৭০ দশকের মাঝামঝিতে টাঙ্গাইল-এলাসিন রুটে চলাচল শুরু করে। সে থেকেই এলাকাটি বেবিস্ট্যান্ড নামে পরিচিতি। আগে হাতে গোনা কিছু টেম্পো এখান দিয়ে যাতায়ত করত। এখন অনেক ব্যস্ততা বেড়েছে এই বেবিস্ট্যান্ডের। এখান থেকে অন্তত আটটি রুটে প্রায় দুই হাজার অটোরিকশা চলাচল করে। রাস্তার পাশ থেকে ও কখনো কখনো রাস্তায় উপর দাঁড়িয়েও যাত্রী ওঠানামা করানো হয়। ফলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এ এলাকায় যানজট লেগেই থাকে। এ রাস্তা দিয়ে টাঙ্গাইলের মূল শহর থেকে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি এমএম আলী কলেজের ২০ সহস্রাধিক শিক্ষার্থীকে যাতায়াত করতে হয়।
এছাড়া টাঙ্গাইল পৌর এলাকার তিনটি ওয়ার্ড, নাগরপুর উপজেলা এবং সদর উপজেলা পাঁচটি ইউনিয়নের মানুষকে এই বেবিস্ট্যান্ড অতিক্রম করতে গিয়ে যানজটে পড়ে মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সরেজমিনে দেখা যায়, কাগমারী রোডের বিএডিসি সামনে থেকে কাগমারী সেতু পর্যন্ত যানজট লেগে আছে। গোরস্তানের মোড়, স্ট্যান্ড রোডের মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে যত্রতত্র দাঁড়িয়ে আছে অটোরিকশা। ফলে মূল রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার রহমান টিনিউজকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে আসতে প্রতিদিন এই বেবিস্ট্যান্ড এলাকায় যানজটে পড়তে হয়। তিন মিনিটের পথ পার হতে কখনো কখনো ২০-২৫ মিনিট লেগে যায়। সরকারি এমএম আলী কলেজের শিক্ষার্থীরা টিনিউজকে বলেন, কলেজটি স্নাতক, সম্মান এইচএসসি এবং বিভিন্ন চাকরি নিয়োগ পরীক্ষার কেন্দ্র হিসেবেও ব্যবহৃত হয় বেবিস্ট্যন্ডের যানজটে পরীক্ষার্থীরা সময়মতো হলে পৌঁছতে পারেন না। শহরের সন্তোষ এলাকায় তাপস কুমার ঘোষ টিনিউজকে বলেন, এই যানজট পার হয়ে শহরে যাতায়াত করতে দুর্ভোগের সীমা থাকে না। যানজট নিরসনে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান তিনি।
টাঙ্গাইল ট্রাফিক পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম সরকার টিনিউজকে বলেন, শহরের বেবিস্ট্যান্ড এলাকা থেকে পশ্চিম দিকে পৌরসভার একটি জায়গা সিএনজি চালিত অটোরিকশার জন্য নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে যানজট অনেক কমে যাবে।

ব্রেকিং নিউজঃ