টাঙ্গাইলে স্টেডিয়ামে খেলোয়াড় ঝগড়া থেকে দর্শকদের মারামারি

461

স্পোর্টর্স রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইল স্টেডিয়ামে বয়স ভিত্তিক (অনুর্ধ্ব-১৭) বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল সফল সমাপ্তি হলো মনে হলেও সফল ভাবে আয়োজন হয়নি। প্রতিটি দলেরই অভিযোগ বিপক্ষ দল বেশী বয়সী খেলোয়াড় নিয়ে মাঠে নেমেছে। এ নিয়ে অনেক কথা কাটাকাটিও হয়েছে। অথচ অনুর্ধ্ব-১৭ বয়সী বালক ও বালিকাদের এই টুর্নামেন্ট থেকে ভবিষ্যৎ খেলোয়াড় গড়ে উঠবে। সেই আশায় এই যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয় এই খেলা সারা বাংলাদেশে আয়োজন করে কোটি টাকা খরচ করছেন। কিন্তু সেই সুফল কিন্তু মাঠে দেখা যাচ্ছে না। জাতীয় পর্যায়ে খেলে এই জন্য অল্পতেই হারিয়ে যায়। টাঙ্গাইল স্টেডিয়ামে করোনাকালে এই আয়োজনে আরো একটি বিষয় ফুটে উঠেছে। সেটা হলো খেলা পরিচালনা টেন্ডে সাধারণ দর্শকের উপস্থিতি। গ্যালারী খালি অথচ মাঠের ভিতরে দর্শকরা খেলা দেখছেন এবং কি খেলায় নিজ দলের, নিজের এলাকার দলের জন্য অবৈধ ভাবে খেলায় হস্তক্ষেপ করছেন।
সোমবার (৭ জুন) ফাইনাল ম্যাচে মাঠে দু’দলের দুইজন খেলোয়াড়ের ছোট্ট ঝগড়া থেকে ঝগড়াটি কিন্তু সারা মাঠে নিজ সমর্থকদের মাঝে মারামারিতে শেষ হয়। এ অবস্থায় টাঙ্গাইল বাস মালিক সমিতির মহাসচিব গোলাম কিবরিয়া বড়মনি ও পুলিশ বাহিনী সহযোগিতায় এগিয়ে না আসলে বড় ধরনের অঘটন ঘটে পারতো। এছাড়া প্রতিটি খেলা সময়মত আয়োজন হয়নি, যে কারনে বিভিন্ন দলের খেলার সময় পরিবর্তন হয়ে গেছে। খেলার মাঠে সহযোগিতার করার লোকের অভাব ছিল। ফুটবল যখন মাঠের বাইরে চলে যায় তখন প্রয়োজন বলবয়, কিন্তু পর্যাপ্ত বলবয়ের অভাব ছিলো। তারপরও করোনা কালে এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করে ক্রীড়া সংস্থা, জেলা ক্রীড়া অফিস সাধুবাদ পেতেই পারে। তাবে অনিয়ম ও ভুলক্রুটি দূর করলে খেলা আরো আকর্ষনীয় হতো।

 

ব্রেকিং নিউজঃ