টাঙ্গাইলে লকডাউনের সপ্তম দিনে লক খুলে গেছে! স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

242

জাহিদ হাসান ॥
বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে প্রশাসন তৎপর, মানুষের মধ্যে অনীহা সর্বত্র। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত সবস্থানেই। কঠোর বিধিনিষেধের সপ্তম দিনে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) টাঙ্গাইলের প্রশাসনের তৎপরতা থাকলেও সর্বত্র বাড়ছে মানুষ। মানুষের মধ্যে বিধিনিষেধ মানতে অনীহা লক্ষ্য করা গেছে। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত।
টাঙ্গাইল শহরে মানুষের চলাচল বেড়ে যাওয়ায় মনেই হয় না কোন কঠোর লকডাউন ও বিধিনিষেধ চলছে। সড়কে যানবাহন ও মানুষের চলাচল ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। কঠোর বিধিনিষেধের সপ্তম দিনে সড়কে যানবাহন ও মানুষের চলাচল আগের দিনগুলোর চেয়ে বহুগুণে বেড়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আগের দিনের চেয়ে বেশি তৎপর দেখা গেলেও দোকানি, ক্রেতা, পথচারী অনেকেরই মাস্ক মুখে থাকছে না। যানবাহন চলাচল করছে দিব্যি।
বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে টাঙ্গাইল শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কেউ চায়ের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে চা খাচ্ছেন, আবার কেউ কাঁচাবাবাজারে ঘোরাঘুরি করে চলে যাচ্ছেন। আবার কেউ অযথা সড়কে, দোকান পারে ভীড় করছেন। আগের দিনের তুলনায় এদিন কাঁচাবাজার, মাছ ও মুদি দোকানে লোকজনের চলাচল বেড়েছে কয়েকগুণ।
টাঙ্গাইলের প্রধান সড়কগুলো ছাড়াও ছোট সড়কগুলোতে মানুষের সঙ্গে যানবাহনের সংখ্যাও অনেক বেশি দেখা যাচ্ছে। শহরের নিরালা মোড় এলাকায় পুলিশ আর ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম দেখা গেছে। নানা ছুঁতোয় বের হওয়া মানুষদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তল্লাশি চৌকিতে, যারা দোকান খুলেছেন, মাস্ক পরে নাই তাদের করা হচ্ছে জরিমানা।
দ্বিতীয় ধাপের কঠোর লকডাউনের সপ্তম দিনেও সরকারী নির্দেশনায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কথা থাকলেও শহরের প্রতিটি এলাকায় দোকানপাট খোলা ছিল। এছাড়াও নির্দেশ অমান্য করে জেলা শহর ও উপজেলা সদরে ছোট ছোট সকল প্রকারের অনেক যানবাহন বেড়ে যাওয়ায় শহরের রাস্তায় যানবাহনের চলাচল ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ