টাঙ্গাইলে বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনা ছড়িয়েছে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে

183

হাসান সিকদার ॥
বিশ্বকাপ হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে। কিন্তু বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলায়। এর প্রভাব পড়েছে টাঙ্গাইল জেলা ও উপজেলা শহর এবং গ্রামাঞ্চলের অলিতে-গলিতে ও পথে-প্রান্তরে। বিশ্বকাপের প্রতিটি আসর শুরুর আগেই এসব এলাকা ও অঞ্চল পরিণত হয় পতাকার শহরে। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। পছন্দের দলের জন্য সমর্থকরা পতাকা উড়িয়ে ও জার্সি পরে আনন্দে মেতেছেন। বিশ্বকাপকে ঘিরে অনেক পরিবার মাতে আনন্দ উল্লাসে।




আগামী এক মাস বিশ্বকাপ ফুটবলের উত্তেজনা-উন্মাদনা ছুঁয়ে যাবে গোটা বিশ্বকে। বৈশ্বিক এই জনপ্রিয় আসরে বাংলাদেশ ফুটবল দল না থাকলেও প্রিয় দলের সমর্থনে বিভোর থাকেন প্রেমময়ী সমর্থকরা। প্রতি বিশ্বকাপে তারা প্রিয় দলের পতাকা উড়িয়ে জানান দেন তাদের ভালোবাসার। প্রিয় দল নিয়ে করেন ভিন্ন ভিন্ন প্রতিযোগিতা।




এদিকে হালের ফেসবুক হয়ে উঠেছে প্রিয় দলের শক্তিমত্তা ও বিশ্বকাপ ট্রফি কয়টা তা জাহির করার একমাত্র হাতিয়ার। চলছে স্ট্যাটাস, পোস্ট ও ভিডিও শেয়ার। এ নিয়ে চলছে ফেসবুকে বাগযুদ্ধ। কেউ কেউ যুক্তিতর্কে লিপ্ত হন। অনেকের মধ্যে এটাই বিশ^কাপের উন্মাদনা। যা একটি শান্তিপ্রিয় খেলাকে খেলার জায়গায় না রেখে অতি আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ে। ফেসবুক ছাড়াও ইনস্টাগ্রাম, টুইটারসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও প্রিয় দলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সমর্থকরা। চলছে পোস্ট ও ভিডিও শেয়ার।




বরাবরের মতো ঐতিহ্যগতভাবে বাংলাদেশিরা ফুটবল পাগল জাতি। প্রতি ৪ বছর পর যখন বিশ্বকাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হয়। তখন সবাই একসঙ্গে পছন্দের দলের সমর্থনে মেতে উঠে উন্মাদনায়। এখন পর্যন্ত বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার অধিভুক্ত ২১১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৯২তম। বিশ্ব ফুটবলে নিজ দেশের অবস্থানে মোটেও কারও গুরুত্ব বা গ্রাহ্য নেই। বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া শক্তিমত্তায় এগিয়ে থাকা বড় দলগুলোর পতাকা পতপত করে উড়তে দেখা যায় এদেশে। এসব পতাকা দেখে বোঝা যায় বাঙালিরা কতটা ফুটবলপ্রেমী। জেলার বিভিন্ন গলিতে দেয়ালে আঁকা হয়েছে পছন্দের দলের পতাকা। আবার অনেক জায়গায় ব্যানার টাঙিয়ে বা পছন্দের দলের পতাকার রঙে ঘর রাঙিয়ে ভালোবাসার জানান দিচ্ছেন সমর্থকরা। এছাড়া বাসাবাড়ির ছাদ, বাস, ট্রাক, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল, রিকশা, ভ্যানে এসব পতাকা উড়তে দেখা গেছে। বাদ যায়নি পরিবহন, চায়ের দোকান, অফিস এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও। ফুটবলপ্রেমীরা তাদের পছন্দের দেশের পতাকা হাটবাজার ও বাসা-বাড়ির ছাদে, আঙিনায়, দোকানে, রাস্তার পাশে, গাছের ডালসহ বিভিন্ন জায়গায় উত্তোলন করেন।

 

ব্রেকিং নিউজঃ