টাঙ্গাইলে প্রথম দিনে করোনার টিকা নিলেন ৯৭৬ জন

111

নোমান আব্দুল্লাহ ॥
টাঙ্গাইলে ১২ টি উপজেলায় প্রথম দিনে করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়েছেন ৯৭৬ জন। রোববার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে একযোগে করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম উদ্বোধনের পর টাঙ্গাইলে প্রথম টিকা নেন জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি। এরপর পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়সহ একে একে দিনব্যাপী জেলার বিভিন্নস্তরের মানুষ টিকা নিতে থাকেন।
সিভিল সার্জন অফিস সূত্র টিনিউজকে জানায়, জেলার মোট ৪২টি কেন্দ্রে টিকা কার্যক্রম চলছে। টাঙ্গাইল ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ৯টি কেন্দ্র এবং ১১টি উপজেলার প্রতিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তিনটি করে বুথ স্থাপন করা হয়েছে। প্রতি বুথে দুই জন করে টিকাদান কর্মী ও চারজন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করছেন। প্রথম দিন ৯৭৬ জন টিকা দেন। এর মধ্যে পুরুষ ৭৮৭ জন এবং মহিলা ১৮৯ জন জন টিকা নেয়। প্রথম দিন টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি মানুষ টিকা নেয়। এর মধ্যে মধুপুর উপজেলায় ৫৪ জন, মির্জাপুরে ৫০ জন, বাসাইলে ৫৪ জন, দেলদুয়ারে ১শ’ জন, নাগরপুরে ৫০ জন, গোপালপুরে ৪৭ জন, কালিহাতীতে ৫৪ জন, সখীপুরে ৫৯ জন, ভূঞাপুরে ১৪৬ জন, ধনবাড়ীতে ১৯ জন, টাঙ্গাইল সদরে ১৮০ জন, ঘাটাইলে ১৫৯ জন।
সূত্রটি টিনিউজকে আরো জানায়, জেলায় মোট ৩৮৬৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। মৃত্যুবরণ করেন ৬৩ জন। সুস্থ হয়েছে ৩৬৬৮ জন।
জানা যায়, প্রথম দিনে টাঙ্গাইল-৩ (কালিহাতী) আসনের সংসদ সদস্য হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী, টাঙ্গাইলে জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, সিভিল সার্জন ডা. আবুল ফজল মো. শাহাবুদ্দিন খান, টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সভাপতি জাফর আহমেদসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন টিকা নিয়েছেন।
সিভিল সার্জন ডা. আবুল ফজল মো. শাহাবুদ্দিন খান টিনিউজকে বলেন, গত (৪ ফেব্রুয়ারি) প্রথম দফায় টাঙ্গাইলে ১ লাখ ২০ হাজার ডোজ করোনা ভ্যাকসিন আসে। প্রথক পর্যায়ে করোনা মোকাবিলায় নিয়োজিত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী, সরকারি অন্যান্য সংস্থার সম্মুখসারির কর্মী, বয়োজ্যেষ্ঠ জনগোষ্ঠী, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, সরকারের অত্যাবর্শক্রীয় অন্যান্য এজেন্সির সদস্যরা করোনার টিকা পাবেন। পর্যায়ক্রমে ১৮ বছরের উপরে সকলকেই টিকা পাবেন। ১৮ বছরের নিচে, গর্ভবতী মা ও দুগ্ধদানকারী, গুরুত্বর অসুস্থ ও হাসপাতালে ভর্তিকৃত ব্যক্তিরা টিকা পাবেন না।
টিকা নেয়ার পর জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গণি টিনিউজকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় আমাদের দেশে টিকা এসেছে। টাঙ্গাইলে আমি প্রথমে টিকা নিতে পেরে আনন্দিত। আজ থেকে আমি সুরক্ষিত। আমি চাই টাঙ্গাইলে যারা টিকা নেওয়ার জন্য আবেদন করেছেন তারা পর্যায়ক্রমে টিকা গ্রহণ করবেন।
পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় টিনিউজকে বলেন, করোনা ভাইরাসের শুরু হওয়ার পর থেকে আমরা অপেক্ষায় ছিলাম কখন টিকা আবিস্কার হবে। বিজ্ঞানীরা টিকা আবিস্কার করার পর প্রধানমন্ত্রী যথাসময়ে আমাদের দেশে টিকা নিয়ে এসেছেন। টিকা নেওয়ার পর থেকে আমি সুস্থ। আমার খুব ভাল লাগছে।

 

ব্রেকিং নিউজঃ