টাঙ্গাইলে ধলেশ্বরী নদীতে অবৈধ ড্রেজিং ও রাতে ভেকু দিয়ে মাটি বিক্রির মহোৎসব

56

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের শিবপুর ধলেশ্বরী নদী থেকে অবাধে অবৈধ ড্রেজিং ও রাতের আধারে ভেকু দিয়ে মাটি বিক্রির মহোৎসব চলছে। অভিযোগ রয়েছে, ওই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য, বিএনপি নেতা, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাসহ প্রভাবশালীরা প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রাত দিন অবৈধভাবে মাটি কেটে বিক্রি করছে। এতে করে আশে পাশের ফসলি জমি হুমকির মুখে পড়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয়রা প্রতিবাদ করলে তাদের প্রাণনাশের হুমকি দেয় মাটি খেকোরা।




এদিকে প্রশাসনের দাবি তারা খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালিয়েছে। কিন্তু স্থানীয়রা জানিয়েছে প্রশাসন এলেও কোন ব্যবস্থা না নিয়েই চলে গেছে। এ কারনে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয়রা জানান, গত দুই সপ্তাহ যাবত শিবপুর গ্রামের হীরা পুলিশের বাড়ির পশ্চিম পাশে ধলেশ্বরী থেকে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ২৪ ঘন্টা অবৈধ ড্রেজিং ও রাতের আধারে মাটি কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। এতে করে এক দিকে যেমন ফসলি জমি হুমকির মুখে পড়ছে। অপর দিকে অবৈধ ট্যাফে ট্রাক্টরের কারণে গ্রামীন সড়ক গুলো নষ্ট হচ্ছে। প্রভাবশালী মাটি খেকোদের কারণে মুখ খুলতে ভয় পায় এলাকাবাসী।




নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুই ব্যক্তি বলেন, প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই প্রভাবশালী মাটি খেকোরা নদী থেকে অবৈধভাবে মাটি কেটে বিক্রি করছে। বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করলেও কোন সুরাহা হয়নি। উল্টো তারা আমাদের হুমকি দিচ্ছে। শনিবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে অ্যাসিল্যান্ড পুলিশসহ তার অফিসের লোক নিয়ে নদীতে গিয়ে ড্রেজার দেখে চলে এসেছে। রহস্যজনক কারণে ড্রেজারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা করেননি তিনি। তাই জেলা প্রশাসনসহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।
এ বিষয়ে বালু ব্যবসায়ীরা বলেন, সব কিছু ম্যানেজ করেই দুই সপ্তাহ যাবত শুধু রাতে ভেকু চালানো হচ্ছে।




সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অতনু বড়–য়া বলেন, শনিবার বিকেলে শিবপুর এলাকায় একটি ভেকু বিনষ্ট করা হয়েছে। তবে সেটি কার তা আমার জানা নেই। আরও কোন অভিযোগ থাকলে সরেজমিন পরিদর্শন করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রানুয়ারা খাতুন বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর এসিল্যান্ডকে পাঠানো হয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ