টাঙ্গাইলে জ্বর-ঠান্ডায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে ॥ হাতপাতালে হিমশিম অবস্থা

66

হাসান সিকদার ॥
গত দুই সপ্তাহ ধরে টাঙ্গাইলে উত্তরের হিমেল বাতাসের সঙ্গে কুয়াশা বাড়ছে। এ অবস্থায় জ্বর-ঠান্ডা, শ্বাসকষ্ট ছাড়াও ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ। গত এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন গড়ে শতাধিক করে শিশু রোগী ভর্তি হচ্ছে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে। এছাড়াও জেলার ১১টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি থাকছে বাড়তি রোগী। এতে হিমশিম খেতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে।




হাসপাতাল সূত্র জানায়, টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ৪৩ সিটের বিপরীতে ভর্তি ছিলো ১১৬ জন রোগী। হাসপাতালের ওয়ার্ড ছাড়িয়ে রোগী ঠাঁই হয়েছে বারান্দার মেঝেতেও। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছে অর্ধশতাধিক রোগী। আর এই বাড়তি রোগীর চাপে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ভর্তি থাকা রোগী ও তাদের স্বজনদের।




আক্রান্ত রোগীর স্বজনরা টিনিউজকে বলেন, ঠান্ডাজনিত সমস্যা নিয়ে ভর্তি হওয়ার পরেও বিকল্প না থাকায় বাধ্য হয়ে মেঝেতে থাকতে হচ্ছে। এতে আমাদের নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হলেও কার্যকর পদক্ষেপ নেই কর্তৃপক্ষের। সদর উপজেলার গালা গ্রামের আতিকুর রহমান টিনিউজকে বলেন, তার চার বছরের ছেলেকে বুধবার (১৬ নভেম্বর) জ্বর-ঠান্ডা নিয়ে ভর্তি করেছেন। মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান নুরুল ইসলাম শামীম টিনিউজকে বলেন, অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে আবহাওয়ার পরিবর্তন ঘটে। আর এই সময়ে ঠান্ডাজনিত নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হয় শিশুরা। এর প্রভাবে গত এক সপ্তাহ ধরে রোগীর সংখ্যা বেড়ে গেছে।




টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. লুৎফর রহমান টিনিউজকে বলেন, গত ১ সপ্তাহে হাসপাতালে প্রায় ৮ শতাধিক শিশু ঠান্ডাজনিত রোগে ভর্তি হয়েছে। এ অবস্থায় আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে আমরা রোগীদের পর্যন্ত সেবা দিয়ে যাচ্ছি।




টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়ক ডা. খন্দকার সাদেকুর রহমান টিনিউজকে বলেন, ধারণ ক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি রোগী ভর্তি থাকছে। এতে রোগীদের থাকতে বেশ সমস্যা হচ্ছে। অতিরিক্ত রোগীর চাপে তাদের রোগ আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ