টাঙ্গাইলে জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

157

স্টাফ রিপোর্টার ॥
বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) টাঙ্গাইল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বিএফএফ-সমকাল জাতীয় স্কুল বিজ্ঞান বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন ও নাগরপুর সরকারি যদুনাথ মডেল উচ্চ বিদ্যালয় রানার্স আপ হয়েছে। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয়েছে বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের রাইসা ফারহীন। সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে বির্তক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি।




বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে সকাল থেকে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিাবক ও সমন্বয়কারী শিক্ষকবৃন্দ টাঙ্গাইল টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে আসতে শুরু করেন। সকাল নয়টার মধ্যে টাঙ্গাইল মিলনায়তনের হলরুম কানায় কানায় ভরে যায়। অতিথিবৃন্দ, বিচারক মন্ডলী ও অভিভাবকগণ নির্ধারিত সময়ের আগেই অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌছান।




৮টি দলের ২৪ জন প্রতিযোগি বিতর্কে অংশ গ্রহণ করে। বিতর্ক প্রতিযোগীতায় অংশ নেয় বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, টাঙ্গাইল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, নাগরপুর সরকারি যদুনাথ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বিবেকানন্দ হাই স্কুল এন্ড কলেজ, জেলা কালেক্টরেট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ, পুলিশ লাইনস্ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, শিবনাথ উচ্চ বিদ্যালয়। দ্বিতীয় রাউন্ডে চারটি দল উত্তীর্ন হয়। বিদ্যালয়গুলো হলো -বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পুলিশ লাইনস উচ্চ বিদ্যালয়, নাগরপুর সরকারি যদুনাথ মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ও বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় ।




চুড়ান্ত প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণ হয় দুটি দল। বিদ্যালয় দুটি হলো -বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারি যদুনাথ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়। চুড়ান্ত প্রতিযোগিতায় জমে উঠে দুই দলের পাল্টাপাল্টি যুক্তি তর্ক। দুই দলই যুক্তি খন্টন করে যার যার পক্ষ থেকে বলার চেষ্টা করে। বিচারক মন্ডলী চুলচেরা বিশ্লেষণ করে চুড়ান্ত প্রতিযোগিতার প্রত্যেক প্রতিযোগীকে নম্বর দেন। চুড়ান্ত প্রতিযোগিতায় বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। রানার্সআপ হয় টাঙ্গাইল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।




প্রতিযোগিতায় বিচারক মন্ডলীর দায়িত্ব পালন করেন সরকারি সাদত কলেজের সহকারি অধ্যাপক হিমাংসু মোহন পাল, সহযোগী অধ্যাপক ছোলায়মান হোসেন সায়েম ও জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা খন্দকার নিপুন হোসাইন। বিকেলে প্রতিযোগীদের মাঝে ক্রেষ্ট ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়। সঞ্চালনায় ছিলেন সুহৃদ সভাপতি রাশেল আদনান। তাকে সহায়তা করেন, সুহৃদ সদস্য মাহফুজা জামান মুন, আবু আহমেদ শেরশাহ ও শ্রাবন আহমেদ সুমন।




টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কাজী জাকরুল মওলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র এস এম সিরাজুল হক আলমগীর, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সহকারি পরিচালক রমেশ চন্দ্র সরকার।

সমকালকে ধন্যবাদ জানিয়ে জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি বলেন, বিজ্ঞান বিষয় পড়ার ভয়ে অনেকেই স্কুল জীবন থেকেই পড়াশোনা বাদ দিয়ে দেয়। বিজ্ঞান বিষয় নিয়ে স্কুলগুলোতে বেশি করে আলোচনার হওয়া প্রয়োজন। বিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার অনিহা কোথায় তা খুজে বের করে তা সমাধানের ব্যবস্থা করলে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ভীতি অনেকটাই কেটে যাবে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ