টাঙ্গাইলে জমে উঠেছে ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও পণ্য মেলা

245

হাসান সিকদার ॥
টাঙ্গাইলে জমে উঠেছে ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও পণ্য মেলা। করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই এই মেলায় বিভিন্ন বয়সী মানুষের সমাগমে মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ। খুশিতে মেতে উঠেছে নানা বয়সীর দর্শনার্থীরা। এদিকে মেলায় কাক্সিক্ষত দর্শনার্থীর আগমনে লাভের আশা কর্তৃপক্ষ ও মেলার ব্যবসায়ীদের। করোনা পরিস্থিতিতে হাপিয়ে ওঠেছে মানুষ। বিনোদনের সুযোগ না থাকায় ঘরবন্দী জীবনে ক্লান্ত অনেকেই। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই টাঙ্গাইল জেলা পরিষদ মাঠে মাসব্যাপী ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও পণ্য মেলায় দর্শনার্থীদের ভিড় জমেছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে কেউ এসেছেন শিশুদের নিয়ে। কেউ কেনাকাটা করতে, আবার অনেকে এসেছেন ঘুরতে। নানা রকমের খাবারের পসরা সাজিয়ে বসেছেন ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি বাচ্চাদের বিনোদনের জন্য রয়েছে নাগরদোলাসহ বিভিন্ন রকমের রাইড। এতে দারুণ খুশি শিশু-কিশোররা।
শিশু দর্শনার্থী আহমেদ তাজ টিনিউজকে জানায়, আমি আমার বাবা-মাকে নিয়ে এ মেলায় ঘুরতে এসেছি। এখানে এসে অনেক ভালো লেগেছে। অনেক কেনাকাটাও করেছি। মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থী সামিয়া আক্তার টিনিউজকে বলেন, করোনার মধ্যে ঘরবন্দী হয়ে ছিলাম দীর্ঘ ১০ মাস। করোনার মধ্যে এই মেলা হওয়ায় আমরা অনেক খুশি। প্রায় সব ধরনের পণ্যের উঠেছে এখানে। বিশেষ করে শিশুরা মেলায় এসে অনেক খুশি। তারা দীর্ঘ ১০ মাস ঘরবন্দী হয়েছিল। মেলায় এসে অনেক আনন্দ উপভোগ করছে শিশুরাসহ নানা বয়েসী মানুষেরা।
নাগরদোলার ব্যবসায়ী পিন্টু মিয়া টিনিউজকে বলেন, আমি বগুরা থেকে নাগরদোলনা নিয়ে এসছি। করোনার মধ্যে ঘরবন্দী হয়ে দীর্ঘ ১০ মাস বসে ছিলাম। খুব কষ্টে জীবন-যাপন করেছি। এই মেলা থেকে কিছু টাকা উপার্জন করে নিয়ে ছেলে-মেয়ের মুখে হাসি ফুঁটাতে পারবো। ব্লেজার বিক্রয়ের একটি স্টলের কর্মী আলিম খান টিনিউজকে বলেন, মেলায় প্রথম সপ্তাহে বিক্রি একদম হয়নি বললেই চলে। বিক্রি না হওয়ার কারণে প্রথম থেকেই আমরা বিভিন্ন অফার দিচ্ছি। তারপরও ক্রেতাদেও দৃষ্টি সেইভাবে আকৃষ্ট করা সম্ভব হচ্ছে না। গত বছরের তুলনায় এবার বিক্রি পরিস্থিত বেশ খারাপ। তবে আমরা আশা করছি মেলার শেষ ১০ দিন ভালো বিক্রি করতে পারবো।
জাকির নামের এক ব্যবসায়ী টিনিউজকে বলেন, এ বছর মেলা বেশ জমেছে। আশা করি, আমাদের ব্যবসা ভালো হবে। মেলা প্রাঙ্গণে যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে আয়োজকরা।
মেলা কর্তৃপক্ষ আবদুস ছালাম টিনিউজকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবারের মেলা আয়োজন করা হয়েছে। প্রত্যেককে মাস্ক পরা নিশ্চিতে আমাদের স্বেচ্ছাসেবীরা কাজ করে যাচ্ছে। মাসব্যাপী এই মেলায় ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও পণ্য মেলায় প্রায় অর্ধশতাধিকেরও বেশি স্টল রয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ