টাঙ্গাইলে করোনায় আক্রান্ত ৩৮৬৭ জন ॥ সুস্থ ৩৬৬৯ জন

52

এম কবির ॥
টাঙ্গাইলে গত ২৪ ঘন্টায় সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) নতুন করে ৩ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট ৩৮৬৭ জনের দেহে করোনার ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৬৬৯ জন। সুস্থতার হার ৯৪.৮২ ভাগ। আর টাঙ্গাইল সদরে ২৮, ঘাটাইলে ৮, মির্জাপুরে ৬, দেলদুয়ার ৪, ধনবাড়ীতে ৩, কালিহাতীতে ৩, গোপালপুরে ২, ভুঞাপুরে ২, সখীপুরে ২, বাসাইলে ২, মধুপুরে ২ ও নাগরপুরে ১ জনসহ মোট ৬৩ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর হার ১.৬৬ ভাগ।
নতুন আক্রান্তদের মধ্যে টাঙ্গাইল সদরে ৩ জন রয়েছে। গত ৮ এপ্রিল জেলায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। জেলায় এপ্রিল মাসে ২৪ জন, মে মাসে ১৪১ জন, জুন মাসে ৪৪৭ জন, জুলাই মাসে ১০২৬ জন , আগস্ট মাসে ৯৬৪, সেপ্টেম্বর মাসে ৫২৯, অক্টোবর মাসে ১৫২, নভেম্বর মাসে ২০৫, ডিসেম্বরে ২১৮, জানুয়ারিতে ১৩৪ এবং এখন পর্যন্ত (৮ ফেব্রুয়ারি) ২২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মাস ভিত্তিক করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কমছে। এখন পর্যন্ত আক্রান্তদের মধ্যে কোন রোগী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি নেই।
এদিকে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলা থেকে ২৬ হাজার ৪৪০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৩৬ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। নতুন করে ১৪ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছে আর ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে ১ জনকে। এখন পর্যন্ত প্রেরিত সকল নামুনার রেজাল্ট এসেছে। বর্তমানে জেলায় মোট ৩৮৬৭ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান টিনিউজকে বলেন, টাঙ্গাইল জেলায় এ পর্যন্ত ৩৮৬৭ জন করোনা ভাইরাস রোগী সনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে টাঙ্গাইল সদরে ১৪২০, মির্জাপুরে ৫৮৮, কালিহাতীতে ২৬২, মধুপুরে ২৫১, ঘাটাইলে ২৪৯, সখীপুরে ২৩২, ভূঞাপুরে ১৮৯, ধনবাড়ীতে ১৭২, গোপালপুরে ১৫৭, দেলদুয়ারে ১৪৩, নাগরপুরে ১০৪ ও বাসাইলে ১০০ জন রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে কোন রোগী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি নেই। আক্রান্তদের মধ্যে ৩৬৬৯ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে। এরা হলেন- টাঙ্গাইল সদরে ১৩১০, মির্জাপুরে ৫৭৪, কালিহাতীতে ২৫৬, ঘাটাইলে ২৪০, মধুপুরে ২৩৬, সখীপুরে ২২৯, ভূঞাপুরে ১৮৭, ধনবাড়ীতে ১৬৭, গোপালপুরে ১৪০, দেলদুয়ারে ১৩৮, নাগরপুরে ১০০ ও বাসাইলে ৮৯ জন।
এখন পর্যন্ত পর্যন্ত ২৪ হাজার ৯৫৫ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনের ও হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছিল। এদের মধ্যে ২৪ হাজার ৫৫১ জনকে কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছে। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৪০৪ জন। এছাড়া জেলায় করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত ৬৩ জন মারা গিয়েছে।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ