মঙ্গলবার, আগস্ট 4, 2020
Home টাঙ্গাইল টাঙ্গাইলে করোনার তীব্রতার বাড়ছে ॥ ৭৪৭ জন আক্রান্ত

টাঙ্গাইলে করোনার তীব্রতার বাড়ছে ॥ ৭৪৭ জন আক্রান্ত

এম কবির ॥
টাঙ্গাইলে গত ২৪ ঘন্টায় রবিবার (৫ জুলাই) নতুন করে ১৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট ৭৪৭ জনের দেহে করোনার ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩২৯ জন। আর মির্জাপুরে ৫, ঘাটাইলে ২, ধনবাড়ীতে ১, দেলদুয়ার ১, টাঙ্গাইল সদরে ১, সখীপুরে ১, মধুপুরে ১, ভুঞাপুরে ১ ও বাসাইলে ১ জনসহ মোট ১৪ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।
টাঙ্গাইল সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, নতুন করে ১৭ জনের করোনা পজেটিভ আসে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে টাঙ্গাইল সদরে ১০, মির্জাপুরে ৬ ও বাসাইলে ১ জন রয়েছে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে মির্জাপুরে কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি বানাইল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের দায়িত্বর ছিলেন। এছাড়া উপজেলার বানিয়ারা গ্রামের এক কৃষকও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
এদিকে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলা থেকে ৮৬০৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৭৭ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছে ১২৪ জনকে। ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে ১৫৯ জনকে। ২৩৫টি নমুনার রেজাল্ট এখনো পাওয়া যায়নি। বর্তমানে জেলায় মোট ৭৪৭ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
এখন পর্যন্ত আক্রান্তদের মধ্যে ৬ জন রোগী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি রয়েছে। টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন উপজেলার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১ জন, টাঙ্গাইলের বাইরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১১ জন, বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছে ৩৮৬ জন।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান টিনিউজকে বলেন, টাঙ্গাইল জেলায় এ পর্যন্ত ৭৪৭ জন করোনা ভাইরাস রোগী সনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে মির্জাপুরে ২৪৯, টাঙ্গাইল সদরে ১৬০, দেলদুয়ারে ৪৩, কালিহাতীতে ৪২, মধুপুরে ৪১, নাগরপুরে ৩৮, ভূঞাপুরে ৩৭, গোপালপুরে ৩৬, ধনবাড়ীতে ৩১, ঘাটাইলে ২৮, সখীপুরে ২৭ ও বাসাইলে ১৫ জন রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ৬ জন রোগী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৫০ বেডের করোনা ডেডিকেডেট ইউনিটে ভর্তি রয়েছে। মোট চিকিৎসাধীন রয়েছে ৪০৪ জন। এদের মধ্যে ৩২৯ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে। এরা হলেন- টাঙ্গাইল সদরে ৮৬, মির্জাপুরে ৬৪, নাগরপুরে ৩২, গোপালপুরে ২৫, দেলদুয়ারে ২২, মধুপুরে ২২, ধনবাড়ীতে ২০, কালিহাতীতে ১৯, ঘাটাইলে ১৫, সখীপুরে ১২, ভূঞাপুরে ৯ ও বাসাইলে ৩ জন।
এছাড়া জেলায় করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত ১৪ জন মারা গিয়েছে। নিহতরা হলো- মির্জাপুরে রেনু বেগম, শামসুল আলম, সমসের আলী, আবু মোতালেব, বিশা মিয়া, ঘাটাইলে মহিউদ্দিন, আব্দুল মান্নান খান, ধনবাড়ীতে আব্দুল করিম ভুইয়া, টাঙ্গাইল সদরের পৌর শহরের আদালত পাড়ার আলী কমপ্লেক্সের মালিক আব্দুর রাজ্জাক, দেলদুয়ার উপজেলার এলাসিন ইউনিয়নের সানবাড়ীতে একজন, সখীপুরে পোশাককর্মী আব্দুল হালিম ও মধুপুরে একজন, ভুঞাপুরে তোফায়েল হোসেন সুশান মিয়া ও বাসাইলের আবু সরকার।
এখন পর্যন্ত পর্যন্ত ১৪৮৬৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনের ও হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা হয়েছিল। এদের মধ্যে ১৩ হাজার ৪০৭ জনকে কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছে। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ১ হাজার ৪৫৯ জন।
উল্লেখ্য, গত (১ মার্চ) থেকে রবিবার (১৭ মে) পর্যন্ত বিদেশে থেকে জেলায় এসেছে ৫ হাজার ৭০৫ জন। কোভিড-১৯ চিকিৎসায় প্রস্তুত রয়েছে জেলার সরকারী হাসপাতালের ৫০টি বেড, উপজেলা পর্যায়ে আইসোলেশন বেড রয়েছে ৫৮টি। ডাক্তার রয়েছে ২৪২ জন, নার্স রয়েছে ৪১৯ জন। করোনা আক্রান্ত রোগী আনা নেয়া করার জন্য এ্যাম্বুুলেন্স রয়েছে ২টি। শনিবার (৪ জুলাই) পর্যন্ত ব্যক্তিগত সুরক্ষা সমগ্রী পিপিই মজুদ রয়েছে ৬ হাজার ৪৯১টি এবং মাস্ক ৩ হাজার ৯০৮টি। শনিবার (৪ জুলাই) পর্যন্ত জেলায় ২ লাখ ২২ হাজার ৫০০ পরিবারের মধ্যে ৩০৫০ মে.টন চাল ও ৮০ হাজার টি পরিবারের মধ্যে নগদ ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা ও শিশু খাদ্য বাবদ ২৭ হাজার ৬৬৬ পরিবারকে ৫১ লাখ টাকা প্রদান করেছে জেলা প্রশাসন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ