টাঙ্গাইলে ওয়াক্ফ এস্টেটের মোতওয়াল্লী নিরূপনে তদন্ত সম্পন্ন

48

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের আলোচিত হায়দার আলী খান পন্নী ওয়াক্ফ আলাল আওলাদ এস্টেটের মোতওয়াল্লী নিরূপনে তদন্ত কার্য বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) সম্পন্ন করা হয়েছে। এস্টেটের সাবেক মোতওয়াল্লী মরহুম বায়াজিদ খান পন্নীর বড় মেয়ে উম্মুত তিজান মাগমুদা পন্নীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকাস্থ ওয়াক্ফ প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্দেশে টাঙ্গাইলের ওয়াক্ফ পরিদর্শক ইউসুফ আলী মোল্লা তদন্ত কার্য পরিচালনা করেন।




জানা গেছে, হায়দার আলী খান পন্নী ওয়াক্ফ এস্টেটের মোতওয়াল্লী বায়াজিদ খান পন্নীর কোন ছেলে না থাকায় তার মৃত্যুর পর ওছিয়ত অনুয়ায়ী দাউদ খান পন্নী মোতওয়াল্লী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি সাবেক মোতওয়াল্লী মরহুম বায়াজিদ খান পন্নীর বড় মেয়ে উম্মুত তিজান মাগমুদা পন্নী তার চাচা দাউদ খান পন্নীর বিরুদ্ধে নানাবিধ অভিযোগ এনে মোতওয়াল্লী পরিবর্তন করে তাকে এস্টেটের মোতওয়াল্লী নিযুক্ত করার জন্য ওয়াক্ফ প্রশাসকের কার্যালয়ে আলাদা দুটি আবেদন করেন। প্রায় একই সময় মরহুম বায়াজিদ খান পন্নীর চতুর্থ স্ত্রী মোছা. খাদিজা খাতুন ও মো. ওমায়ের খান পন্নী একই বিষয়ে পৃথক আবেদন করেন। অথচ ওছিয়তনামা অনুয়ায়ী করটিয়া জমিদার পরিবারের পন্নী বংশের কোন মেয়ে সন্তান এস্টেটের মোতওয়াল্লী হওয়ার যোগ্যতা রাখেন না।





উল্লেখিত আবেদনগুলোর বিষয়াদি নিস্পত্তির লক্ষে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ ওয়াক্ফ প্রশাসনের সহকারী প্রশাসক সিনিয়র সহকারী সচিব রুবায়েত হায়াত শিপলু টাঙ্গাইলের ওয়াক্ফ পরিদর্শক মো. ইউসুফ আলী মোল্লাকে নির্দশ দেন।
সরেজমিন তদন্তকালে বিমান বাহিনীর সাবেক ক্যাপ্টেন ও এস্টেটের মোতওয়াল্লী দাউদ খান পন্নী, মরহুম বায়াজিদ খান পন্নীর চতুর্থ স্ত্রী মোছা. খাদিজা খাতুন, বড় মেয়ে উম্মুত তিজান মাগমুদা পন্নী, ছোট মেয়ে শাহানা পন্নী, স্থানীয় অ্যাডভোকেট আকবর আলী খান, দেওয়ান মোশারফ হোসেন, রোকেয়া ফাজিল(ডিগ্রি) মাদ্রাসার উপাধ্যাক্ষ হাফেজ মৌলানা আবুল হোসেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হালিম, ব্যবসায়ী নেতা আব্দুর রশিদ, রাজিব চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।




এস্টেটের সাবেক মোতওয়াল্লী মরহুম বায়াজিদ খান পন্নীর বড় মেয়ে উম্মুত তিজান মাগমুদা পন্নী এ বিষয়ে আলাদা কিছু বলতে অনীহা প্রকাশ করেছেন।
এ বিষয়ে বর্তমান মোতওয়াল্লী দাউদ খান পন্নী জানান, তাদের বংশের মেয়েরা এস্টেটের মোতওয়াল্লী হতে পারবেন না- এটা স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে। ব্যক্তিগত স্বার্থে তারা আবেদন করে থাকতে পারেন। তিনি পূর্বপুরুষদের ঐতিহ্য রক্ষায় এখনও সুষ্ঠু ও সুচারুভাবে এস্টেটের দায়িত্ব পালন করছেন। আক্ষেপ করে তিনি জানান, দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি ‘হেযবুত তওহীদ’ নামীয় একটি সংগঠনের ক্যাডারদের হাতে ইতোপূর্বে দুই বার হামলার শিকার হয়েছেন। তিনি দায়িত্বে না থাকলে অনেক আগেই পরিবারের বিষয়-সম্পত্তি হাতছাড়া হয়ে যেত।




টাঙ্গাইলের ওয়াক্ফ পরিদর্শক ইউসুফ আলী মোল্লা জানান, সরেজমিনে পরিদর্শন করার সময় তিনি নানা বিষয়ের দলিল-দস্তাবেজ দেখেছেন। স্থানীয় প্রবীণ ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলেছেন। প্রতিবেদন দেওয়ার পর উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।
প্রকাশ, ১৯২৫ সাল থেকে ওছিয়তনামার মাধ্যমে করটিয়া জমিদারদের সম্পত্তি হায়দার আলী খান পন্নী ওয়াক্ফ আলাল আওলাদ এস্টেট এবং হায়দার আলী খান পন্নী ওয়াক্ফ লিল্লাহ এস্টেট হিসেবে মোতওয়াল্লী নিয়োগের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ