টাঙ্গাইলে অসময়ের বৃষ্টিতে অপ্রস্তুত জনজীবন

90

জাহিদ হাসান ॥
মৌসুমি বায়ু এখন বিদায়ের পথে। তবে তার আগে বৃষ্টি ঝরিয়ে যাচ্ছে। দুই দিন ধরে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হয়েছে। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) টাঙ্গাইল জেলা ও উপজেলার অনেক জায়গায় বৃষ্টি হচ্ছে। অসময়ের বৃষ্টিতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে বাইরে বের হওয়া লোকজনকে। আশি^ন মাসের এই সময়ে আকাশ ভেঙে নেমেছে বৃষ্টি। সেই সঙ্গে দমকা শীতল বাতাস বইছে। ফলে টাঙ্গাইলসহ বেশির ভাগ এলাকার জনজীবন যেন অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছে। নানা কাজে বাইরে যাঁরা বের হয়েছেন তাঁরা বৃষ্টিতে ভোগান্তিতে পড়েছেন। বর্ষার মতো বৃষ্টিতে টাঙ্গাইলের রাস্তাঘাটগুলো কাদায় মাখামাখি হয়ে পড়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের দেওয়া সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ ভারতের উত্তর প্রদেশ, বিহার ও পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে ভারতের আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর–পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যত্র মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

 

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে- রংপুর, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, চট্টগ্রাম, সিলেট রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশালের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে। দেশের উত্তরাঞ্চলে দিনের তাপমাত্রা কমে যেতে পারে। অন্যত্র তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

 

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র আরও জানায়, কাল পর্যন্ত বৃষ্টি হওয়ার পর দুই দিন বিরতি দিয়ে আবার বৃষ্টি হতে পারে। আর অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত থাকতে পারে মৌসুমি বায়ুর প্রভাব। বৃষ্টি হচ্ছে মূলত দেশের মূল ভূখণ্ডের মধ্যে। উজানে ভারী কোনো বৃষ্টি নেই। তাই এখন বন্যার আশঙ্কা নেই। যমুনা ও মেঘনা নদীর পানি কিছুটা কমে যাচ্ছে। গঙ্গার পানি খানিকটা বাড়লেও তা কমে আসবে শিগগিরই।

বৃষ্টিতে ভোগান্তিতে পড়েছেন কর্মজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষ। পানিতে থই থই সবজির খেত। সেখানে কৃষক ইব্রাহিম হোসেন মুলা ও কচুমুখির বীজ বপন করেছেন। মুলার গাছ গজিয়েছে। কিন্তু এখন গজায়নি কচুমুখির গাছ। বৃষ্টিতে খেতের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন তিনি। খেতে জমে থাকা পানি বের করে দিচ্ছেন। ছাতা মাথায় দিয়ে বাইরে বের হয়েছে মানুষ। অসময়ের বৃষ্টিতে ভোগান্তিতে পড়েন বাইরে বের হওয়া মানুষ।

 

ব্রেকিং নিউজঃ