টাঙ্গাইলের সড়কগুলোতে উড়ছে ধুলাবালু ॥ জনগনের দুর্ভোগ

94

স্টাফ রিপোর্টার ॥
টাঙ্গাইলের বিভিন্ন স্থানে নালা নির্মাণসহ নানা ধরনের উন্নয়নকাজ চলছে। এতে কয়েক মাস ধরে সড়ক-ভবনে ধুলাবালুর আস্তর পড়ছে। ধুলায় ধূসর টাঙ্গাইলবাসীর দুর্ভোগ। শহরের প্রায় প্রতিটি সড়কে ভোগান্তি নিয়ে পথ চলছে মানুষ। রয়েছে সবুজ গাছপালা। নগরের অদূরে সবুজ গাছপালা মোড়ানো পার্ক। বলতে গেলে টাঙ্গাইলবাসীর দুর্ভোগ মুড়িয়ে রেখেছে সবুজ প্রকৃতি। তবে শহরে অভ্যন্তরে নালা, সড়ক সংস্কার তার ধুলাবালুতে ধূসর হয়ে পড়েছে টাঙ্গাইল শহর।
শহরের অভ্যন্তরের গাছপালাগুলোতে পড়েছে ধুলার আস্তরণ। রাস্তার পাশের সবুজ গাছের পাতায় জমেছে ধুলা। সড়কের পাশের দোকানপাট ও ভবনগুলোও একই অবস্থা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন শহরের বাসিন্দা। এছাড়া ধুলাবালু স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এবং এতে ফুসফুস ও শ্বাসতন্ত্রের নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন চিকিৎসকেরা। শহরবাসিরা টিনিউজকে বলেন, শহরের অধিকাংশ মানুষ সিএনজিচালিত অটোরিকশা, রিকশা অথবা মোটরসাইকেল ব্যবহার করে। ব্যক্তিগত গাড়ি অনেক কম। এতে ধুলাবালু সরাসরি গায়ে ও মুখে এসে পড়ায় ভোগান্তি পোহাতে হয় মানুষকে। এ অবস্থায় সামনে শুষ্ক মৌসুমে এমন দুর্ভোগ আরও বাড়বে বলে মন্তব্য করেন তাঁরা।
সরেজমিন দেখা গেছে, টাঙ্গাইল শহরের প্রায় প্রতিটি সড়কেই ধুলার রাজত্ব। শহরের প্রায় সব এলাকার সড়কে দিন-রাত সমানতালে ধুলাবালু উড়ছে। শহরের এলাকার নিরালা ইলেকট্রনিকের ব্যবসায়ী শাহ আলম টিনিউজকে বলেন, প্রায় দশ বছর ধরে ব্যবসা করছেন। এর মধ্যে এক বছর ধরে ভাঙাচোরা সড়কে ধুলাবালুর কারণে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ধুলাবালুর কারণে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ক্রেতার সংখ্যা কমে গেছে। ধুলাবালু কমাতে সড়কে নিজ উদ্যোগে প্রতিদিন কয়েক দফা পানি ছিটিয়ে দেন। কিন্তু তাতে কোনো কাজ হচ্ছে না।
শহর এলাকায় মোটরসাইকেলের আরোহী সবুজ হাসান টিনিউজকে বলেন, সারা শহরে একই অবস্থা। হেলমেট ব্যবহার করেও রেহাই পাওয়া যায় না। শরীরে ও কাপড়ে সড়কের ধুলাই কাহিল হতে হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ