শুক্রবার, আগস্ট 7, 2020
Home টাঙ্গাইল ঝুলছে ‘টু লেট’ ॥ ভাড়াটিয়া সংকটে টাঙ্গাইলের বাড়ির মালিকরা

ঝুলছে ‘টু লেট’ ॥ ভাড়াটিয়া সংকটে টাঙ্গাইলের বাড়ির মালিকরা

হাসান সিকদার ॥
সারা বিশ্বকে গ্রাস করেছে করোনার ভয়াল থাবা। বাদ পড়েনি বাংলাদেশও। টাঙ্গাইলও এর ব্যতিক্রম নয়। টাঙ্গাইলে করোনা শনাক্তের পর থেকেই প্রশাসন লকডাউনসহ নানা রকম পদক্ষেপ নিচ্ছে। পরামর্শ দেয়া হচ্ছে যথাসম্ভব ঘরে থাকার। ফলে আয় কমে গেছে নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও নিম্নআয়ের মানুষের। যেখানে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে মানুষ টাঙ্গাইলে পা বাড়ায় সেখানে করোনায় কার্যত নিঃস্ব হয়ে দলে দলে গ্রামমুখী হচ্ছে তারা। তাতে ভাড়াটিয়া সংকট দেখা দিয়েছে টাঙ্গাইলের অনেক বাড়িতে। এখন বাড়িতে বাড়িতে ঝুলছে বাসাভাড়া দেয়ার বিজ্ঞাপন ‘টু লেট’।
করোনার কারণে অনেক মানুষ কাজ হারিয়েছেন, অনেক মানুষের শ্রেণি কাঠামোর পরিবর্তন হয়েছে। নতুন করে অনেক মানুষ হতদরিদ্র হয়েছেন। ফলে আগের ভাড়ার ভার বইতে পারছেন না তারা। যার কারণে ছেড়ে দিচ্ছেন বাসা, সঙ্গে শহরও। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, টাঙ্গাইলের কর্মসংস্থানের সিংহভাগ টাঙ্গাইল শহর ও মির্জাপুর কেন্দ্রিক হওয়ায় বিভিন্ন অঞ্চলের লোকজন কাজের সন্ধানে টাঙ্গাইলমুখী হতেন। এই জেলার বাসিন্দার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৫ লাখের বেশি। যাদের প্রায় ৩২ শতাংশই ভাড়াটিয়া। করোনার পরবর্তী পরিস্থিতি বদলে দিয়েছে বাসা ভাড়ার চিত্রও।
করোনা পরিস্থিতিতে শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা যায়, বেশিরভাগ বাড়িতেই দু’একটা ফ্ল্যাট ফাঁকা আছে। ভাড়াটিয়া চেয়ে ‘টু লেট’ লেখা বিজ্ঞাপন ঝুলানো থাকলেও বাড়ির মালিকরা খুঁজে পাচ্ছে না ভাড়াটিয়া। আবার দু’একটি ফ্ল্যাট ফাঁকা হয়ে যাওয়ার মধ্যেই বাড়ির মালিককে বাসা ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিচ্ছেন অনেক ভাড়াটিয়া। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় শহরের বেশ কিছু বাড়ি মালিকের সঙ্গে। তারা টিনিউজকে জানান, ভাড়াটিয়ারা সাধারণ ছুটি বা লকডাউনের কারণে অনেকেই তাদের পরিবারের সদস্যদের গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছেন। আবার অনেকে উচ্চ ভাড়া না দিতে পেরে ছোট বাসা বা মেসে উঠছেন। যে কারণে বাসাগুলো ফাঁকা রয়ে গেছে। ঠিকমত বেতন না পাওয়া, কাজ না থাকা এমনকি চাকরি হারানোই এমন পরিস্থিতি তৈরির ক্ষেত্রে বড় কারণ।
শহরের পলাশতলীর এক ভাড়া বাসার বাসিন্দা রবিন আকরাম। চাকরি করেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। তিনিও বাড়ির মালিককে জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী মাস থেকে বাসা ছেড়ে দিবেন। সে অনুসারে বাড়ির মালিকও ‘টু লেট’ টাঙিয়েছেন। কেন বাসা ছেড়ে দিচ্ছেন জানতে চাইলে রবিন আকরাম টিনিউজকে বলেন, সীমিত বেতনে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। যেখানে বেতনের সিংহভাগই চলে যায় বাসা ভাড়ায়। পরিবার নিয়ে ওই বাসায় থাকতাম। আমার দুই সন্তান এই শহরে থেকে পড়াশুনা করতো। বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ রয়েছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে বিগত দুই মাস ধরে অর্ধেক বেতন পাচ্ছি। যে কারণে বাসা ভাড়া আর কুলাতে পারছি না এছাড়া সংসার চালানো কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। বাড়ি মালিককে অনুরোধ করেছিলাম কমপক্ষে এক মাসের ভাড়া মওকুফের জন্য। কিন্তু সে বিষয়ে কর্ণপাত না করে বাড়ি মালিক বাসা ছেড়ে দিতে বলেছেন। এছাড়া বাসা ছেড়ে দেবো বলাতে এখন উদ্দেশ্যমূলক নানা প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে। দেশের এই পরিস্থিতিতেও এই অমানবিক আচরণ দুঃখজনক। তাই পরিবার গ্রামে পাঠিয়ে দিয়ে নিজে একটি মেসে উঠেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ব্রেকিং নিউজঃ