চরাঞ্চলের মইশা গ্রামে র‌্যাবের সাথে বন্ধুক যুদ্ধে দুই সর্বহারা নিহত

115

101876_bonduk_war-330x150স্টাফ রিপোর্টারঃ

টাঙ্গাইলের চরাঞ্চলের মইশা গ্রামে র‌্যাবের সাথে বন্ধুক যুদ্ধে দুই পূর্ববাংলা কমিউনিষ্ট পার্টি চরমপন্থি সর্বহারা নিহত হয়েছে। আর এ ঘটনায় সর্বহারা দলের তিন সদস্য আহত হয়েছে। এছাড়া র‌্যাবের এক এসআই গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছে। বুধবার রাত সোয়া তিনটার দিকে সদর উপজেলার হুগড়া ইউনিয়নের মইশা গ্রামের শাহাদতের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত সর্বহারা সদস্যরা হলো- সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আকবর হোসেন (৪৫) ও মইশা গ্রামের মনু মিয়া (৩৫)।
টাঙ্গাইল র‌্যাব-৩ এর কোম্পানী কমান্ডার মুহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মইশা গ্রামে অভিযান পরিচালনা করার সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ১০/১২ জন পূর্ববাংলা কমিউনিষ্ট পার্টি চরমপন্থি সর্বহারা সদস্যরা ওই এলাকার শাহাদত হোসেনের বাড়িতে জোর করে অবস্থান নিয়ে আত্মগোপন করে। র‌্যাব সদস্যরা সর্বহারাদের অবস্থান নেয়া টিনের ঘরের কাছে গেলে পুরো ঘরে বৈদু্ৎতিক র্শট র্সাকিট তৈরি করে রাখে চরমপন্থিরা। এ সংবাদ পেয়ে ওই বাড়িতে র‌্যাব সদস্য অবস্থান নিলে চরমপন্থীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে। এ সময় র‌্যাবের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলাম গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়। আত্মরক্ষাত্রে র‌্যাব পাল্টা গুলি ছুড়লে দুই চরমপন্থী সদস্য মনু মিয়া (৩৮) ও মইষা নন্দনাল গ্রামের হাসু মিয়ার ছেলে বাঘিল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আকবর হোসেন (৪৫) গুলিবিদ্ধ হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাদেরকে হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক তাদের দুইজনকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে আহত র‌্যাব সদস্য মনিরুল ইসলামকে প্রথমে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় প্রেরন করেন। বর্তমানে তিনি ঢাকা সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি আছেন।
এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরো ৩জন সর্বহারা সদস্য। তারা হলো- কাকুয়া বেলদা গ্রামের আব্দুল নূরের ছেলে চান মিয়া (৩৫), মইষা গ্রামের আরমান মিয়ার ছেলে রায়হান (৪০) ও গুপ্ত গাগুলজান গ্রামের আয়নালের ছেলে ফরিদ (৩৪)। আহত ৩জন চরমপন্থি সদস্যকে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি ৬ পয়েন্ট ৭৫ বোরের পিস্তল, একটি দেশীয় তৈরি ওয়ান শুটার, দুই রাউন্ড গুলি, একটি ম্যাগজিন  বেশ কয়েকটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ