ঘাটাইল পৌরসভার দুই কাউন্সিলরকে পিটিয়ে আহত

77

pageঘাটাইল সংবাদদাতাঃ
টাঙ্গাইলের ঘাটাইল পৌরসভার দুই কাউন্সিলরকে সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে কেন্দ্র করে পৃথক দুটি স্থানে ও ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো- ঘাটাইল পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনছুর আলী ও ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ কবীর আহম্মেদ। মারাতœক আহত অবস্থায় তাদের দু’জনকেই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। তারা দুজনই স্থানীয় সাংসদ আমানুর রহমান খান রানার অনুসারী।
প্রত্যাক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, সোমবার রাতে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ঘাটাইল কলেজ মোড়ে সোমবার সারাদিন ব্যাপি বণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক শহিদুল ইসলাম লেবুর অনুসারী উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠানটি উদ্ভোধন করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ সভাপতি মাহমুদুল হাসান মারুফ। অপরদিকে সাংসদ আমানুর রহমান খান রানার সমর্থকরা এমপির বাসায় পৃথকভাবে কেক কেটে অনুষ্ঠান করে। পরে অনুষ্ঠানের ছবি দিয়ে ফেববুকে স্ট্যাটাস দেয়। এতে লেবুর সমর্থক ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ক্ষুদ্ধ হয়। এ ঘটনার জের ধরে ঘাটাইল পৌরসভার জনতা সিনেমা হলের সামনে ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ কবীর আহমেদকে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। অপরদিকে কাজী রোডে হামলার স্বীকার হন ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনছুর আহমেদের হাত ভেঙ্গে দেয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক শহিদুল ইসলাম লেবু অভিযোগ করে বলেন, ছাত্রলীগের কর্মীরা মিছিল নিয়ে আসার সময় পৌরসভার আমতলাতে সাংসদ রানার লোকজন তাদের বাধা দেয়। এছাড়া প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন না করে ফেসবুকে মিথ্যা স্ট্যাটাস দেয়ায় ছাত্রলীগের কর্মীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা।
এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন বলেন, দুই কাউন্সিলর আহত হওয়ার ঘটনা আমি শুনেছি। তবে এ নিয়ে কোন পক্ষই আমার কাছে অভিযোগ করেনি। অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ