ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনামূল্যে জটিল অস্ত্রোপচার শুরু

126

স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ॥
শেফালী বেগম নামে এক মহিলা রোগীর পিত্তথলীর পাথর অপসারণের মাধ্যমে ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনামূল্যে জটিল অস্ত্রোপচার কার্যক্রম শুরু করেছে। বুধবার (২০ জুলাই) সকালে ওই মহিলার অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু করা হয়। টাঙ্গাইল জেলার মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে এ ধরনের অস্ত্রোপচার এটাই প্রথম বলে জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডাঃ শহিদুল ইসলাম খোকন।

আবাসিক চিকিৎসক ডাঃ শহিদুল ইসলাম খোকন জানান, অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পিত্তথলীর পাথর অপসারণ করা রোগী শেফালী বেগম (৫৫) বাড়ি উপজেলার ছনখোলা গ্রামে। তার স্বামীর নাম মানিক হোসেন। সার্জারী বিশেজ্ঞ চিকিৎসক ডাঃ আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে একটি টিম ওই মহিলার অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন করেন। এর আগে প্রসূতির অস্ত্রোপচার সহ ছোটখাট অস্ত্রোপচার চলামান থাকলেও এ ধরনের জটিল অস্ত্রোপচার শুরুর মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটির সেবা কার্যক্রম আরো একধাপ এগিয়ে গেল।

তিনি আরো জানান, ঘাটাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ১৯৬৫ সালে স্থাপিত হয়। বর্তমানে উপজেলার ৫ লক্ষ মানুষ ছাড়াও পাশের উপজেলার মানুষও ৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি অবস্থান টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে হওয়ায় অন্যন উপজেলার চাইতে প্রতিদিন সেবাগ্রহণকারী রোগীর সংখ্যা বেশী। সেবার মান বাড়াতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ১০০ শয্যায় উন্নীত করা প্রয়োজন।

অস্ত্রোপচার হওয়া রোগী শেফালী বেগমের মেয়ে স্বপ্না বেগম জানান, বিনামূল্যে এরকম একটি জটিল অপারেশন করতে পারায় আমরা খুশি। এলাকার লোকজন এরকম অপারেশনের জন্য ক্লিনিকে যেতে হতো বাড়তি টাকাও গুনতে হতো। এখন থেকে গরীর ও দুস্থ রোগীদের আর্থিক সাশ্রয় হবে এবং সুচিকিৎসাও পাবে।

সার্জারী চিকিৎসক ডাঃ আব্দুল্লাহ বলেন, শেফালী বেগমের পিত্তথলীর পাথর সফলভাবে অপসারণ করা হয়েছে। রোগী বর্তমানে সুস্থ আছে। এখন থেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে নিয়মিত এপেনডিক্স ও হার্নিয়া মতো জটিল রোগের অস্ত্রপচার করা হবে।

 

 

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ