ঘাটাইলে ছেলের মুখ দেখার আকুতি পূরণ হলো না মায়ের

610

স্টাফ রিপোর্টার, ঘাটাইল ॥
টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দত্তগ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের স্ত্রী হাছনা বেগম। স্বামী আব্দুল জলিল মারা গেছেন প্রায় ২৫ বছর আগে। একমাত্র সম্বল ছেলে বিএনপি কর্মী বসির আহম্মেদ পুলিশের করা নাশকতা মামলায় ১১ দিন যাবৎ জেলে।




গ্রামবাসী ও হাছনার আত্বীয়দের দেয়া তথ্যমতে হাছনার শরীরটা কিছুদিন যাবৎ ভালো যাচ্ছিল না। গত (২২ নভেম্বর) ছেলে বছির জেলে যাওয়ার পর তার শরীরট আরো খারাপ হয়ে পড়ে। যে ছেলে মা’কে রেখে কোথাও গিয়ে রাত কাটাতেন না সেই ছেলে ১১ দিন ধরে জেলে। তাই সারাক্ষণ বৃদ্ধা মায়ের চোখের কোণে জল জমে থাকত। ছেলেকে শেষবারের মতো একবার দেখার আকুতি ছিল তাঁর কিন্তু তা অপূর্ণই থাকে। ছেলে জেলা থাকা অবস্থায় শনিবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে মারা যান হাছনা বেগম।
মা ছেলেকে শেষ দেখা দেখতে না পারলেও মা’কে শেষ বিদায় জানাতে বসির প্যারোলে সাত ঘন্টা মুক্তি পেয়ে বাড়ি ফিরেন বাড়ি ফিরেন। পরিবারের আবেদনের পেক্ষিতে দুপুর দুইটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত মায়ের জানাজা ও দাফন কাজে অংশ নিতে প্যারোলে মুক্তি মেলে তার।
বসিরের চাচাতো ভাইয়ের ছেলে নিজাম উদ্দিন টিনিউজকে বলেন, ছোট সময় থেকেই বিএনপির সমর্থক ছিল তাঁর চাচা। মৃত্যুর আগে এক নজর ছেলের মুখটা দেখার আকুতি ছিল তাঁর দাদীর। কিন্তু তাঁর সে আশা পূরণ হলো না। চাচা বসিরের এক ছেলে ও এক মেয়েকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদতেন তাঁর দাদী। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বাদ আছর জানাজা শেষে তাঁর দাদীকে স্থানীয় সামাজিক গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে।




গত (২২ নভেম্বর) উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের কাশতলা ভিটিপাড়া এলাকায় কর্মী সমাবেশের আয়োজন করে বিএনপি। পাঁচ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে সভা পন্ড করে দেয় পুলিশ। পুলিশের দাবি তাঁরা সাতটি ককটেল উদ্ধার করেন সভাস্থল থেকে। আটক করা হয় বসিরসহ ১০ নেতাকর্মীকে। পরে ওইদির রাতেই থানার উপরিদর্শক বিল্লাল হোসেন বাদি হয়ে ৩৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৭০-৮০ জনের নামে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করেন।




এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার (ওসি) আজহারুল ইসলাম সরকার টিনিউজকে বলেন, মায়ের মৃত্যুর কারণে বসিরকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হলে সঙ্গে থাকা জেলা পুলিশ তাঁকে নিয়ে পুণরায় জেলহাজতে প্রেরণ করবেন।

 

ব্রেকিং নিউজঃ