ঘাটাইলে কলাবাগান কেটে ফেলার প্রতিবাদে সখীপুরে মানববন্ধন

133

সখীপুর প্রতিনিধি ॥
টাঙ্গাইলের ঘাটাইলের সংগ্রামপুর ইউনিয়নের সনখোলা গ্রামের দুই কৃষকের চার হাজার অপরিপক্ক ছড়িসহ কলাগাছ বনবিভাগের পক্ষ থেকে কেটে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। বুধবার (২৪ জুন) বেলা ১১টায় টাঙ্গাইলের সখীপুরের মোখতার ফোয়ারা চত্বরে ‘আমরা কৃষকের সন্তান’ নামের একটি ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। এতে সখীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের একটি অংশ ওই কর্মসুচিতে যোগ দেন।
সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফা আনোয়ার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খান রফিক, শহর ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর সেলিম প্রমুখ। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খান রফিক জানান, গত (২০ জুন) সকালে ঘাটাইলের সংগ্রামপুর ইউনিয়নের সনখোলা গ্রামের মিস্টার আলী ও আলাল উদ্দিনের চার হাজার অপরিপক্ক ছড়িসহ কলাগাছ কেটে ফেলে। টাঙ্গাইল বনবিভাগের ধলাপাড়া রেঞ্জের আওতাধীন বটতলী বিটের কর্মকর্তা আল মামুন খানের নেতৃত্বে ওই কলাগাছ কাটা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এটা একটা অমানবিক ঘটনা। আমরা কৃষকের সন্তানরা ওই বিট কর্মকর্তার বিচার দাবি করছি।

ওই দুই কৃষক বুধবার (২৪ জুন) মুঠোফোনে বলেন, আমরা প্রায় ১০০ বছর ধরে ওই জমি চাষাবাদ করছি। তবে দীর্ঘদিন ধরে ওই জমি বন বিভাগ তাঁদের বলে দাবি করছে। গত (২০ জুন) দলবল নিয়ে ওই বিট কর্মকর্তা প্রায় চার হাজার কলাগাছ কেটে ফেলে ওই জমি দখলে নিয়ে বনায়ন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এতে আমাদের ১৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ধলাপাড়া রেঞ্জের আওতাধীন বটতলী বিটের কর্মকর্তা আল মামুন খান তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে টিনিউজকে বলেন, আমরা অল্প কিছু কলাগাছ কেটেছি যার মধ্যে কোনো কলার ছড়ি ছিল না। ওই জমি মূলত বন বিভাগের। ওই জমিতে সামাজিক বনায়ন হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বন বিভাগের বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট খবর ছড়ানো হয়েছে। একটি মহল জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

ব্রেকিং নিউজঃ