গোপালপুরে নাশকতার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবি

159

গ্রেফতার গ্রেপ্তারস্টাফ রিপোর্টারঃ

সাম্প্রতিক সরকার বিরোধী আন্দোলনে যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, রেললাইনে নাশকতা এবং রাহাজানির সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়েছে। গত শনিবার টাঙ্গাইলের গোপালপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ‘ঝাওয়াইল ইউনিয়নবাসি, ব্যানারে এ দাবি জানানো হয়।
লিখিত বক্তব্যে এরশাদুল হক আজাদ ও ইমরুল হাসান অভিযোগ করেন, বেড়াডাকুরি গ্রামের মৃত এখলাসের পুত্র সন্ত্রাসী হাবিবুর ওরফে হবি বাহিনীর হাতে ইউনিয়নবাসি জিম্মী। এরশাদ আমলে জাপার ক্যাডার হিসাবে যাত্রা শুরু। ’৯১ সালে জার্সি বদলিয়ে বিএনপিতে যোগ দেয়। উপদলীয় কোন্দলে উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি এনামুল হককে হত্যা করে। সেই মামলায় তার যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয়। দেড় বছর আগে সরকারের সাধারণ ক্ষমায় সে মুক্তি পায়। এলাকায় ফিওে সে পুরনো সাঙ্গপাঙ্গো নিয়ে বাহিনী গঠন করে।
সম্প্রতি ঘোড়ামারা ব্রিজের নিকট দারোগা শরীফ উদ্দীন ভূইয়া এবং কনস্টেবল আব্দুল মজিদকে কুপিয়ে জখম করে তারা। সাম্প্রতিক সরকার বিরোধী আন্দোলনে ৫০/৬০টি যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, তারাকান্দি-ভূঞাপুর রেললাইনের ফিসপ্লেট উঠিয়ে নাশকতা ও ডাকাতি করে। এসব ঘটনায় পুলিশ আদালতে চার্জশিট দেয়। গ্রেফতারি পরোয়ানা সত্ত্বেও তারা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।
এ বিষয়ে ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খায়রুল ইসলাম জানান, ওরা পেশাদার সন্ত্রাসী। ভাড়া খাটে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার জানান, ওদের কাছে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। গত ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের আগে ও পরে ওরা ত্রাস সৃষ্টি করে। ওরা গ্রেফতার না হওয়ায় মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। গোপালপুর থানা পুলিশ জানায়, বাগে পেলেই ওদের গ্রেফতার করা হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ