গোপালপুরে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ॥ ধর্ষক কারাগারে

151

গোপালপুর সংবাদদাতা ॥
টাঙ্গাইলের গোপালপুরে সিনেমার নায়িকা বানানোর প্রলোভনে অপহৃত এক কলেজ ছাত্রীকে (১৯) আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ধর্ষককে আটক করেছে পুলিশ। অপহরণকারী ধর্ষক ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী থানার মাইটকুমরা গ্রামের কাইয়ুম শিকদারের ছেলে এসএম আকাশ ওরফে ফারুক শিকদার (২৮)।
রোববার (১৪ এপ্রিল) রাতে গোপালপুরের ভোলারপাড়া গ্রামবাসী অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার করে অভিযুক্ত ধর্ষককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয়। পরে রোববার (১৪ এপ্রিল) গভীর রাতে মেয়ের বাবা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেন। সোমবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে অভিযুক্ত আসামী আকাশকে টাঙ্গাইল আদালতে আনা হয়। পরে আদালত অভিযুক্ত আসামী আকাশকে টাঙ্গাইল কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রী গোপালপুর সরকারি কলেজের অর্নাস প্রথম বর্ষের ছাত্রী। গত (২১ জানুয়ারি) সকালে গোপালপুর সরকারি কলেজে স্থানীয় এমপি’র সংবর্ধনা ও নবীন বরণ অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফেরার পথে ওই ছাত্রীকে রাস্তা থেকে মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে নিয়ে যায়। সেখানে একটি বাসায় আটকে রেখে সিনেমার নায়িকা বানানোর কথা বলে প্রায় তিনমাস তাকে ধর্ষণ করে। এদিকে অপহৃত ধর্ষিতার বোন কৌশলে মোবাইলে যোগাযোগ করে রোববার বিকেলে তাদেরকে টাঙ্গাইলের গোপালপুরের ভোলারপাড়া গ্রামে নিয়ে আসে। এই সুযোগে স্থানীয়রা ধর্ষককে গণধোলাই দিয়ে ছাত্রীসহ দু’জনকেই পুলিশে দেয়।
এ ব্যাপারে গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে টিনিউজকে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। পরে সোমবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ওই ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মূলত নায়িকা বানোনার প্রলোভনে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়ে থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

ব্রেকিং নিউজঃ