কোটা পদ্ধতির সংস্কারের দাবীতে মাভাবিপ্রবি ও সা’দত কলেজে বিক্ষোভ

117

মাভাবিপ্রবি/ সা’দত কলেজ প্রতিনিধিঃ মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং করটিয়া সা’দত কলেজে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের ৫ দফা দাবীসহ ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্রীর উপর হামলা ও সংসদে মতিয়া চৌধুরীর ”কোটা সংস্কারে আন্দোলনকারীরা রাজাকারে বাচ্চা” কথার প্রতিবাদে মাথায় কালো কাপড় বেধে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সাধারন শিক্ষার্থীরা।
বুধবার ১১ এপ্রিল দুপুরে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম গেটে এসে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিল শেষে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রথম গেটে তারা এক সংক্ষিপ্ত সভার আয়োজন করে।

বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, বৈষম্যের ঠাই নাই, স্লোগানকে সামনে রেখে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। কোটা ব্যবস্থার সংস্কার করে ৫৬% থেকে ১০% এ নিয়ে আসা, কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্য পদগুলোতে মেধায় নিয়োগ দেয়া, চাকরি পরীক্ষায় কোটা পদ্ধতি একাধিকবার ব্যবহার না করা, কোটায় বিশেষ ধরনের কোন পরীক্ষা না পাওয়া এবং চাকরির ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন কাটমার্কস ও বয়সসীমা নির্ধারন করা এই ৫ দাবীতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে সাধারন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান রেখে নাতি-নাতনী কোটা প্রত্যাহারের দাবি জানান তারা।
এসময় টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের রাসেল কবির ও আব্দুল বাছেদ, ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগের মিজানুর রহমান, ফুড টেকনোলজি এন্ড নিউট্রিশনাল সায়েন্স বিভাগের আবির আহমেদ, নাজমুল হাসান ও আরিফুল ইসলামসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর বক্তব্যের প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের দাবিতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের লিংক রোড করাতিপাড়া এলাকায় সড়ক অবরোধ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে সরকারী সা’দত কলেজের শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১২টা থেকে প্রায় এক ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। এসময় শিক্ষার্থীরা কৃষিমন্ত্রীকে ক্ষমা চেয়ে তার বক্তব্য প্রত্যাহার ও অতিদ্রুত কোটা সংস্কারের দাবি জানান।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, করটিয়া সা’দত কলেজের শিক্ষার্থী সাইফুল্লাহ, রিয়াদ, আল আমিন, শাকিল আহমেদ প্রমুখ।

ব্রেকিং নিউজঃ