কালিহাতীতে কাঠ পুড়িয়ে তৈরি হচ্ছে কয়লা ॥ পরিবেশের সর্বনাশ

88

সোহেল রানা, কালিহাতী ॥
টাঙ্গাইলের কালিহাতী পৌরসভার কালিহাতী গ্রামে অবৈধভাবে গাছের গুঁড়ি ও কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করা হচ্ছে। অথচ এই কারখানার পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন ছাড়পত্র নেই। চুলি থেকে নির্গত ধোঁয়ায় পরিবেশ দূষিত হচ্ছে, নষ্ট হচ্ছে ফসল। এছাড়া আশপাশের এলাকার মানুষ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।




কালিহাতী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা আলী আকবর জব্বারের পরিত্যক্ত ইটভাটা প্রাঙ্গনে হামিদপুরের প্রভাবশালী ব্যাটারি ব্যবসায়ী বাবলু সাহা এই কয়লা তৈরির কারখানা গড়ে তুলেছেন। টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কালিহাতী বনবিভাগ থেকে সিলিমপুর সড়কের পাশে পৌরসভার কালিহাতী গ্রামে অবস্থিত এ কয়লা কারখানা তৈরি করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এখানে গাছের গুঁড়ি দিয়ে কয়লা তৈরি করছেন। কারখানায় রয়েছে সাতটি চুলি। বিভিন্ন এলাকা থেকে শ্রমিক নিয়ে এসে কাজ করানো হচ্ছে। পরিত্যক্ত ইটভাটার পাশে তিন ফসলি জমিতে মাটি ভরাট করে এই কারখানা গড়ে তোলা হয়েছে।




সরজমিনে দেখা যায়, প্রায় ১৫ শতাংশ জায়গাজুড়ে কয়লা তৈরির কারখানা। চারদিকে উঠতি আমন ফসলের মাঠ ও বসতবাড়ি। ইট দিয়ে চুলি বানিয়ে মাটির প্রলেপ দেওয়া হয়েছে। চুলিতে গাছের গুঁড়ি পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করা হচ্ছে। চুলির চারদিকে রাখা গাছের গুঁড়ি ও শুকনা কাঠ-লাকড়ি। মোট সাতটি চুলিতে আগুন জ্বলছে। কালো ধোঁয়ায় চারদিক ছেয়ে গেছে। চারপাশে বিভিন্ন আকারের গাছের গুঁড়ি রাখা হয়েছে। এক পাশ দিয়ে ছোট কয়লা বের করা হচ্ছে। অন্য পাশে সেই কয়লা শুকানো হচ্ছে। বাকি জায়গায় বস্তায় ভর্তি করে রাখা হয়েছে কয়লা। প্রায় ৭ থেকে ১০ দিন পোড়ানোর পর চুলা থেকে কয়লা বের করা হয়। প্রতিটি চুলিতে প্রতিবার ২৫০ থেকে ৩০০ মন কাঠ পোড়ানো হয়। কাঠ পুড়ে কয়লা হয়ে গেলে সেগুলো বের করে ঠান্ডা করে বিক্রির উদ্দেশ্যে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।




স্থানীয় বাসিন্দারা টিনিউজকে বলেন, এলাকায় অনেক গাছপালা ছিল। কাঠ পুড়িয়ে কয়লা বানানোর কারণে আমাদের শ্বাসকষ্টসহ নানাবিধ রোগ দেখা দিয়েছে। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় হামিদপুর এলাকার ব্যাটারি ব্যবসায়ী বাবলু সাহা সরকারি নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে রাস্তার সাথে কয়লা তৈরির কারখানা স্থাপন করে রাত-দিন কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করছেন। কারখানার নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো অনুমোদন। এদিকে এদের বিরুদ্ধে স্থানীয় কেউ প্রতিবাদ করলেই তাদের ওপর নানা ধরনের হুমকি-ধামকি নেমে আসে বলে অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে চুলি মালিক বাবলু সাহা টিনিউজকে বলেন, কালিহাতী পৌরসভা থেকে আমাকে ট্রেড লাইসেন্স দিয়েছে কয়লা তৈরি করার জন্য। এখানে তো অবৈধ কিছু করা হয় না, যে প্রশাসনের অনুমতি লাগবে। তার দাবি এভাবে চুলায় কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরিতে পরিবেশের কোনো ক্ষতিকর দিক নেই।




কালিহাতী পৌরসভার মেয়র নুরুন্নবী সরকার টিনিউজকে বলেন, কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাহেদুর রহমান টিনিউজকে বলেন, কয়লা তৈরিতে এসব চুলায় কাঠ পুড়িয়ে যে ধোঁয়ার সৃষ্টি হচ্ছে এতে শিশুসহ বয়স্করাও ফুসফুসের সংক্রমনজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এ ব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হুসেইন টিনিউজকে বলেন, কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরির বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য আমার কাছে ছিল না। এটা একজন আমাকে বলেছে, খোঁজ নিয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ