কালিহাতীতে এক রাতে তিন বাড়িতে ডাকাতি ॥ টাকাসহ স্বর্ণালঙ্কার লুট

305

সোহেল রানা, কালিহাতী ॥
টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে এক রাতে তিন ঘণ্টায় তিন বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাত দল দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তিন বাড়ি থেকে নগদ টাকা, এলইডি টিভি, মোটরসাইকেল, ব্যাংকের চেকবই, মোটরসাইকেলের যাবতীয় কাগজপত্র ও ভোটার আইডি কার্ডসহ স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়। খবর পেয়ে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) শরফুদ্দীন, কালিহাতী সার্কেল এএসপি শরিফুল ইসলাম ও কালিহাতী থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমানসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন।

শুক্রবার (২৯ জুলাই) দিনগত গভীর রাতে উপজেলার বাংড়া ইউনিয়নের বড় ইছাপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে মাসুদের বাড়িতে ও এলেঙ্গা পৌরসভার রৌহা পূর্ব পাড়া গ্রামের নুরুল ইসলাম নাহিদ ও খন্দকার আসাদুজ্জামানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

ক্ষতিগ্রস্ত বড় ইছাপুর গ্রামের মাসুদ (৩৮) বলেন, রাত ২ টার দিকে বিদ্যুৎ এর লোডশেডিংয়ের সময় আমার বোন ঘরের ক্যাচিগেইটে বিকট শব্দ শুনতে পেয়ে রুম থেকে বের হয়। বের হওয়ার সাথে সাথে ৫-৭ জনের মুখোশ পরিহিত একদল ডাকাত আমার বাড়িতে প্রবেশ করে লোহার ক্যাচিগেটের তালা কেটে ভিতরে ঢুকে আমার বোনকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাকে দিয়ে একেক করে বাড়ির সবাইকে ডাকায়। পরে তারা কাপড় দিয়ে আমাদের সকলের চোখ-মুখ বেঁধে ঘরের একটি কক্ষে নিয়ে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আটক করে রাখে। এ সময় বিভিন্ন আসবাবপত্রেও ভাংচুর চালায় তারা। পরে আমাদের শরীরে থাকা স্বর্ণালঙ্কার, আলমারি থেকে নগদ ৪০ হাজার টাকা, ব্যাংকের চেকবই ও আলমারিতে থাকা আরও কিছু স্বর্ণালংকারসহ মোট ৯ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায়। এছাড়াও আমাদের হুমকি দিয়ে গেছে যে তারা আবারও আসবে। এ ঘটনায় কালিহাতী থানা থেকে দফায় দফায় পুলিশের টিম এসে পরিদর্শন করে গেছেন।

এর আগে একই রাতে এলেঙ্গা পৌরসভার রৌহা পূর্ব পাড়া গ্রামের নুরুল ইসলাম নাহিদ ও খন্দকার আসাদুজ্জামানের বাড়িতেও ডাকাতরা হানা দেয়। নুরুল ইসলাম নাহিদের বাড়ি থেকে প্রায় ৪ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ৬৫ হাজার টাকা ও খন্দকার আসাদুজ্জামানের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল, টিভি সহ স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করা হয়।

নুরুল ইসলাম নাহিদের স্ত্রী বিলকিস খাতুন (৩০) বলেন, আমি আমার ছোট বাচ্চা নিয়ে ঘরে ঘুমাচ্ছিলাম। রাত আনুমানিক ১ টার দিকে হঠাৎ কিছুটা শব্দ শুনতে পাই। তখন ভাবছি হয়তো ইঁদুরে বিভিন্ন কিছু কাটছে সেই শব্দ হচ্ছে। কিছুক্ষণ পরেই ঘরের গ্রিলে অনেক বড় একটা আওয়াজ হয়। তখন আমি ঘরের দরজা খুলতে যাই। এমন সময় দরজা খোলার সাথে সাথে একদল মুখোশধারী ডাকাতরা ঘরে প্রবেশ করলে আমি দৌড়ে এসে আমার বাচ্চাকে কোলে নেই এবং ভয়ে চিৎকার দেই। তখন তারা আমাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বলে, কোন কথা না বলে যা কিছু আছে সব দিয়ে দে, না হয় তোকে এবং তোর বাচ্চাকে মেরে ফেলবো। এই বলে আমার ঘর থেকে নগদ ৬৫ হাজার টাকা ও ৪ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায়।

খন্দকার আসাদুজ্জামান বলেন, রাত আনুমানিক প্রায় ১২ টার দিকে আমার বাড়িতে একদল মুখোশধারী ডাকাত দল প্রবেশ করে আমাদেরকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সুজুকি (১৫০ সিসি) মোটরসাইকেল, ৩৬ ইঞ্চি এলইডি এলজি টিভি, ভোটার আইডি কার্ড ও মোটরসাইকেলের যাবতীয় কাগজপত্রসহ ৮ আনি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায়।

এবিষয়ে কালিহাতী থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। আমাদের তদন্তের কাজ চলমান রয়েছে। অভিযোগ প্রাপ্তি সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ